২০১৯ সালটা যেন বিক্ষোভের বছর। বিশ্বের প্রায় সব প্রান্তেই দেখা গেছে ক্ষমতাসীন সরকার, দুর্নীতির বিরুদ্ধে আর গণতান্ত্রিক অধিকার ও স্বাধীনতার পক্ষে আন্দোলন। হংকং থেকে বলিভিয়া, ফ্রান্স থেকে লেবান্ন , সব খানেই দেখা গেছে আন্দোলনের উত্তাপ। ১৯৬০ দশকের পর বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সবচেয়ে বেশি বিক্ষোভ দেখা গেছে এই বছর। কেবল ২০১৯ নয়, গত দশ বছরে যেসব বিক্ষোভ নজর কেড়েছে বিশ্ববাসীর সেগুলি দেখে নেওয়া যাক এক নজরে।

আরব বসন্ত (২০১১-২০১২)
২০১০ সালের শুরু থেকে আরব বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বয়ে যাওয়া গণবিপ্লবের ঝড়কে আরব বসন্ত বলে থাকেন পশ্চিমের সাংবাদিকরা। গণবিক্ষোভের শুরুটা হয়েছিল মিশরে। এরপর তা ছড়য়ি পড়ে লিবিয়া, সিরিয়া, ইয়েমেন সহ বিভিন্ন দেশে। প্রথমে মিশরে প্রেসিডেন্ট হোসনি মুবারকের পতন হয়। পরে লিবিয়ায় মুয়াম্মর আল গদ্দাফি জমানার অবসান হয়।

 

 

ওয়ালস্ট্রিট আন্দোলন (২০১১-২০১২)
নিউইয়র্কের ওয়ালস্ট্রিট যেমন দুনিয়া জুড়ে অর্থনীতিতে আধিপত্য চালায়, তেমনই ওয়ালস্ট্রিটের বিক্ষোভের স্ফুলিঙ্গ দাবানল হয়ে ছড়িয়ে পড়েছিল দুনিয়া জুড়ে। অকুপাই ওয়ালস্ট্রিট আন্দোলনের থেকে অনুপ্রানিত হয় বিশ্বের ৯০০ বেশি শহরে রাস্তায় অবরোধে নেমে পড়েন বিক্ষোভকারীরা। পুঁজিবাদী সংস্কৃতি, ধনী ও গরিবের ব্যবধান বৃদ্ধি এবং অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের দায় এড়াতে সরকারি ব্যয় সংকোচন নীতির বিরুদ্ধেই ছিল এই প্রতিবাদ। 

 

 

ইরাকে বিক্ষোভ (২০১৮-২০১৯)
সরকারের দুর্নীতির বিরুদ্ধে পথে নামেন ইরাকের অগণিত মানুষ। দাবি তোলেন প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগের। এখনও পর্যন্ত এই আন্দলনে ৩০০ জন প্রতিবাদীর মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। 

 

 

হংকং বিক্ষোভ (২০১৯)
লাগাতার বিক্ষোভ চলছে হংকং-এ। বন্দি প্রত্যপর্ণ নিয়ে সরকারি একটি বিলের বিরোধিতায় গত জুন মাসে বিক্ষোভের ডাক দেয় চিনের নিয়ন্ত্রণে থাকা হংকং-এর বাসিন্দারা। লাখো মানুষের আন্দলনের মুখে বিতর্কিত বিলটি আনুষ্ঠানিকভাবে প্রত্যাহার করে কর্তৃপক্ষ। কিন্তু রাজনৈতিক স্বাধীনতার দাবিতে এখনো বিক্ষোভ চলছে হংকং-এ। প্রায়শই বিক্ষোভকারীদের উপর পুলিশের বলপ্রয়োগের অভিযোগ উঠছে। চিন সরকারে অনড় অবস্থানেও বিক্ষোভ চালিয়ে যাচ্ছেন হংকংবাসী। 

 

 

জলবায়ু আন্দোলন (২০১৯)
সুইডেনের পার্লামেন্টের সামেনর রাস্তায় হাতে প্ল্যাকার্ড নিয়ে বসেছিলেন কিশোরী গ্রেটা থুনবার্গ। ১৬ বছরের কিশোরী গ্রেটার এই আন্দোলনই পরে বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে দাবানলের মতো। গ্রেটার দাবিতে সাড়া দিয়ে জার্মানি, বেলজিয়াম, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, অস্ট্রেলিয়া, জাপানসহ ১০৫টি দেশের ১৬৫৯টি স্থানে শিক্ষার্থীরা জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করে। বিশ্বজোড়া ছাত্রছাত্রীদের আন্দোলনকে সমর্থ জানিয়েছেন পরিবেশ বিজ্ঞানীরাও।