আর মাত্র দুদিন বাকি। তারপরই তাঁদের বুকে নামার কথা চন্দ্রযান ২-এর। আর এই অভিযান সম্পূর্ণ হতে না হতেই আলোচনায় চলে এল ইসরোর আরও একটি স্বপ্নের প্রকল্প গগনযান। এতদিন ভারত মহাকাশ চর্চার ক্ষেত্রে অনেক সাফল্য পেয়েছে। চাঁদে গবেষণা চালানো হয়েছে। মঙ্গল গ্রহেও পাঠানো হয়েছে মহাকাশযান। চন্দ্রযান ২ তো একেবারে চাঁদের মাটিতে নেমে গবেষণা চালাতে চলেছে। কিন্তু এখনও ভারত মানুষ পাঠায়নি মহাকাশে।

সেই কাজটাই হবে গগনযানের মাধ্যমে। ইসরোয় তৈরি হচ্ছে মানুষ পাঠানোর মতো মহাকাশযান। এতে তিনজন মানুষ মহাকাশে যেতে পারবেন। পৃথিবী থেকে ৪০০ কিলোমিটার উচ্চতায় সাত দিন পর্যন্ত প্রদক্ষিণ করতে পারবে গগনযান। ২০১৪ সালের ১৮ ডিসেম্বরই মানুষ ছাড়া এই যানের ইউড়ান পরীক্ষা সফল হয়েছিল। ২০২১ সালের ডিসেম্বরে মানুষ নিয়ে মহাকাশে পারি দেওয়ার কথা গগনযানের।  

আর এই বিষয়ে ভারতকে সহায়তা করবে রাশিয়া। এদিন রাশিয়া সফরে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী মোদী সেই দেশের সঙ্গে বিভিন্ন ক্ষেত্রের ১৫টি চুক্তি সাক্ষর করেছেন। এদিন রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনকে সঙ্গে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী মোদী ঘোষণা করেছেন গগনযানের সওয়ারি হওয়ার জন্য ভারতীয় নভোশ্চরদের প্রশিক্ষণ দেবে রাশিয়া।

মহাকাশ অভিযান ও চর্চায় এগিয়ে থাকা দেশগুলির অন্যতম রাশিয়া। বস্তুত সেই দেশের নভোশ্চর ইউরি গ্যাগারিনই প্রথম মানুষ হিসেবে মহাকাশে গিয়েছিলেন। ১৯৮৪ সালে সোভিয়েত রাশিয়ার 'ইন্টারকসমস প্রোগ্রাম'-এর মাধ্যমেই ভারতীয় বায়ুসেনার প্রাক্তন পাইলট রাকেশ শর্মা প্রথম ও এখনও পর্যন্ত একমাত্র ভারতীয় হিসেবে মহাকাশে গিয়েথছিলেন। তার আগে তাঁকে ও আরেক প্রাক্তন বায়ুসেনা পাইলট রবিশ মালহোত্রাকেও বেশ কয়েক মাস ধরে রাশিয়ায় নিয়ে গিয়ে মহাকাশ যাত্রার প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ দিয়েছিল রাশিয়া।