আইপিএল ২০১৯-এর শুরুটা দুর্দান্ত করেও মাঝপথে রাস্তা হারায় কেকেআর। তারপরেও অবশ্য প্লেঅফ খেলার মতো সুযোগ ছিল কেকেআর-এর সামনে। কিন্তু রবিবার সেই ম্য়াচেও ব্যর্থতাই সঙ্গী হয়েছে কেকেআর-এর। আর তারপর দলের সহকারী কোচ সাইমন ক্য়াটিচ মেনে নিলেন হারের ফলে দলের অন্দরের পরিবেশ অনেকটাই বদলে গিয়েছিল। সব কিছু ঠিকঠাক চলেনি।

অথচ প্রথম ৫ ম্যাচের চারটিতে জিতে শুরুতে লিগ টেবিলের শীর্ষে ছিল কলকাতার দলটি। কিন্তু তারপর পরপর ৬ ম্য়াচে হারে কেকেআর। শেষের দিকে ২টি ম্য়াচ জিতে ফের প্লেঅফের আশা ফিরিয়েছিল দীনেশ কার্তিকের দল। কিন্তু শেষ ম্যাচে সব আশাই ফুরিয়ে যায়। সানরাইজার্স হায়দরাবাদের মতো ১২ পয়েন্টে শেষ করলেও নেট রান রেটে পিছিয়ে প্লেঅফে জায়গা করে নিতে পারেনি কলকাতার দলটি।

আইপিএল অভিযান শেষ হয়ে যাওয়ার পর সহকারী কোচ সাইমন ক্যাটিচ বলেই দিলেন , দলের মধ্যে চাপা উত্তেজনা যে ছিল তা লুকিয়ে রাখার উপায় নেই। শেষ কয়েক ম্যাচে দলের খেলায় তা ধরাও পড়েছে বলে জানান তিনি। পর পর কয়েক ম্যাচে হারের পরই দলের দলের মধ্যে সমস্যা তৈরি হয়েছিল। ক্যাটিচ জানান, আইপিএল-এ দলের মধ্যে একতা ও দলের গতিশীলতা অত্যন্ত দরকারি। যা টানা পরাজয়ের পর কেকেআর দলে দেখা যায়নি।

তিনি একই সঙ্গে জানিয়েছেন কেকেআর দল তার একতা নিয়ে খুবই গর্বিত। দীর্ঘদিন ধরে বেশ কিছু মানুষ এই দলের সঙ্গে কাজ করছেন। আর তার জন্যই এই ফ্র্যাঞ্চাইজি এতটা সফল।

এর আগে দলের অন্দরের অশান্তির চিত্রটা প্রকাশ্যে এসেছিল আন্দ্রে রাসেল মুখ খোলায়। সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি সাফ জানিয়ে দিয়েছিলেন দলের পরিবেশ মোটেই ভালো নেই। তারপর মোহালিতে মাঠের মধ্যেই দীনেশ কার্তিক দলের জোরে বোলারদের প্রতি অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন। পরে, সাংবাদিক সামনে তিনি বলেছিলেন দলে তাঁর পিছনে কে কী বলছে সব তার জানা। তাতেই দলের ড্রেসিংরুমের পরিবেশ নিয়ে জল্পনা চলছিল। অভিযান শেষ হওয়ার পর সহকারী কোচ তা সরাসরি প্রকাশ করে দিলেন।

এবার, আগামী মপরসুমে দীনেশ কার্তিককে আর অধিনায়ক রাখা হয় কি না সেটাই দেখার।