আজু আবুধাবির শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে আইপিএলের মেগা ম্য়াচ। মুখোমুখি হতে চলেছে কলকাতা নাইট রাইডার্স ও সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। প্রথম ম্য়াচে হারের মুখ দেখতে হয়েছে দুই দলকেই। আরসিবির বিরুদ্ধে হারতে হয়েছিল ডেভিড ওয়ার্নারের দলকে। অপরদিকে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে হারতে হয়েছিল দীনেশ কার্তিকের দলকে। ফলে আজ জয়ের সরণিতে ফিরতে মরিয়া দুই দল। একে অপরকে এক ইঞ্চি জমিও ছাড়তে নারাজ কেকেআর ও এসআরএইচ। এদিন টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদের অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার।

দলগত শক্তি ও পরিসংখ্যানের বিচারে কিছুটা এগিয়ে কলকাতা নাইট রাইডার্স। দুদলের ১৭ বার সাক্ষাৎে কেকেআর জিতেছে ১০ বার ও হায়দরাবাদ জিতেছ ৭ বার। গত ম্য়াত কেকেআরের ব্য়াটিং লাইন আপ ক্লিক না করলেও, তা যথেষ্ট শক্তিশালি। ব্য়াটিংয়ে রয়েছে শুভমান গিল, নীতিশ রানা, ইয়ন মর্গ্যান, দীনেশ কার্তিক, আন্দ্রে রাসেল মত নাম। এছাড়া বোলিং বিভাগে রয়েছে সুনীল নারিন, কুলদীপ যাদব, শিবম মাভি, প্যাট কামিন্সদের মত তারকারা। যদিও প্রথম ম্যাচে মাভি ছাড়া খুব একটা ছন্দে ছিলেন না কোনও বোলরই। তবে গত ম্যাচের হার থেকে শিক্ষা নিয়ে সানরাইজার্স বধের বিষয়ে আত্মবিশ্বাসী কেকেআর।

অপরদিকে, সানরাইজার্স হায়দরাবাদের দলও খাতায় কলমে খুবই শক্তিশালী। যদিও প্রথম ম্য়াচে মিডল অর্ডারের ব্যর্থতার জন্য জেতা ম্য়াচ হারতে হয়েছিলে ডেভিড ওয়ার্নারের দলকে। কাজে লাগেনি জনি বেয়ারস্টোর লড়াকু ইনিংসও। কিন্তু এই ম্যাচে বেয়ারস্টোর ফর্ম ভরসা জোগাচ্ছে দলকে। রানে ফিরতে মরিয়া ওয়ার্নারও। এছাড়াও ব্য়াটিং লাইনআপে রয়েছে মণীশ পাণ্ডে, বিজয় শঙ্কর, প্রিয়ম গর্গরা। বোলিং বিভাগেও রয়েছে রাশিদ খান, ভুবনেশ্বর কুমার, সন্দীপ শর্মারা। ফলে কেকেআরকে লড়াই দেওয়ার জন্য প্রস্তুত হায়দরাবাদও।