দীর্ঘ প্রায় ২ মাসের লড়াই। শেষ হয়েছে ৫৯টি ম্যাচ।  এবার আইপিএল ২০২০-র শেষ ম্যাচ অর্থাৎ মেগা ফাইনাল। মঙ্গলবার দুবাই ইন্টার ন্যাশানল স্টেডিয়ামে সুপার ফাইনালে মুখোমুখি হতে চলেছে মুম্বই ইন্ডিয়ান্স ও দিল্লি ক্যাপিটালস। আইপিএলের ফাইনালকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যেই তুঙ্গে উন্মাদনা। প্রথমবার আইপিএল ট্রফি জয়ের এত কাছে এসে সুযোগ হাত ছাড়া করতে নারাজ অধিনায়ক শ্রেসয় আইয়রের দিল্লি ক্যাপিটালস। অপরদিকে, ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন ও পঞ্চমবার ট্রফি জয়ের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে রোহিত শর্মার মুম্বই ইন্ডিয়ান্স। ফলে আজ দুবাইতে আরও একটি থ্রিলার ফাইনাল দেখার অপেক্ষায় গোটা ক্রিকেট বিশ্ব। 

 

হট ফেভারিট মুম্বই-
এবারের আইপিএলের প্রথম থেকেই মুম্বই ইন্ডিয়ান্সকে আইপিএল জয়ের অন্যতম দাবিদার হিসেবে দেখছিলেন  ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা। প্রতিযোগিতার প্রথম ম্যাচ চেন্নাইয়ের কাছে হারের পর দুরন্তভাবে কামব্যাক করে মুম্বই। গ্রুপ লিগের টপার হিসেবে প্লে অফে জায়গায় কের নেয় রোহিত ব্রিগেড। কোয়ালিফায়ারের প্রথম ম্য়াচে দিল্লিকে হারিয়ে ফাইনালে জায়গা করে নেয় মুম্বই। এছাড়াও লিগ রাউন্ডে দুবার শ্রেয়স আইয়রের দলকে মাত দিয়েছে মুম্বই ইন্ডিয়ান্স পল্টন। এছাড়া ব্যাটিং ও বোলিং বিভাগে ছন্দে রয়েছে দলের সকল প্লেয়ার। নিজেদের দিনে যে কেউ ম্যাচ জেতাতে সক্ষম। ব্য়াটিং লাইনআপে রোহিত শর্মা, কুইন্টন ডিকক, যূর্যকুমার যাদব, ইশান কিষাণ, হার্দিক পান্ডিয়া, কায়রন পোলার্ডদের বিধ্বংসী ফর্ম ভরসা দিচ্ছে এমআই টিম ম্যানেজমেন্টকে। অপরদিকে বোলিং বিভাগেও ছন্দে রয়েছে ক্রুণাল পান্ডিয়া, রাহুল চাহার, কুল্টারনাইল ও বোল্ট-বুমরা জুটি। তবে ফাইনালের মত মেগা ম্য়াচে দিল্লির মত শক্তিশালী দলকে সমীহ করছে মুম্বই। কিন্তু পঞ্চমবার ট্রফি জয়ের বিষয়ে আত্মবিশ্বাসী চারবারের চ্য়াম্পিয়নরা।

 

দিল্লির প্রথমবার আইপিএল জয়ের স্বপ্ন-
অপরদিকে নানা চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে অবশেষে প্রথমবার আইপিলের ইতিহাসে ফাইনালে পৌছেছে দিল্লি ক্যাপিটালস দল। যদিও পথটা মোটেই সহজ ছিল না শ্রেয়স আইয়রের দলের। প্রতিযোগিতার শুরুটা অনবদ্যভাবে করেছিল কোচ রিকি পন্টিংয়ের দল। গ্রুপ লিগে লাগাতার ম্যাচ জিতে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার অন্যতম দাবিদার ছিলেন তারা। কিন্তু দ্বিতীয় লেগে শেষ ম্য়াচ আরসিবিকে হারিয়ে ২ নম্বর দল হিসেবে প্লে অফে কোয়ালিফাই করলেও, তার আগে পরপর চারটি ম্যাচ হেরে যথেষ্ট কোণঠাসা হয়ে পড়েছিল দিল্লি। প্লে অফের প্রথম ম্য়াচেও গ্রুপ লিগের দুটি ম্যাচের মত মুম্বইয়ের কাছে হার শিকার করতে হয় রাজধানীর দলকে। তবে ফাইনালে মুম্বইকে এক ইঞ্চিও জমি ছাড়তে নারাজ শ্রেয়স আইয়রের দল। বিশেষ করে প্লে অফের শেষ ম্য়াচে ব্যাটে ধওয়ান, স্টয়নিস, হেটমায়ার, রাবাডাদের দুরন্ত পারফরমেন্স ভরসা জোগাচ্ছে দলকে। এছাড়া ফাইনালে কোচ রিকি পন্টিংয়ের মগজাস্ত্রের উপরও ভরসা রাখছে দল। ফলে প্রথমবার আইপিএল জিততে বদ্ধপরিকর দিল্লি ক্যাপিটালস।

 

পিচ ও ওয়েদার রিপোর্ট-
ফাইনালের মত মেগা ম্যাচে দুবাইয়ের পিচ ব্যাটিং সহায়কই হতে চলেছে। শট খেলতে এখানে ব্যাটসম্যানদের খুব একটা সমস্যা হবে না। এছাড়া নতুন বলে পেস বোলাররাও কিছুটা সুবিধা পাবে। মাঠ বড় হওয়ায় কিছুটা সুবিধা পাবে স্পিনাররাও। ফাইনালে টসে জিতে প্রথমে ব্য়াটিং করাই শ্রেয় বলে মনে করা হচ্ছে। মঙ্গলবার দুবাইয়ের তাপমাত্রা থাকবে ৩০ ডিগ্রির আসেপাশে। বজায় থাকবে আদ্রতাজনতি অস্বস্তি।

 

ম্যাচ প্রেডিকশন-
মুম্বই ইন্ডিয়ান্স পুরো প্রতিযোগিতা একাধিপত্ব বজায় রেখে খেলে এসেছে। দিল্লিকে তিনবার হারিয়েছে। দলগত শক্তির বিচারেও শ্রেসয় আইয়রের দলের থেকে অনেকটা এগিয়ে রোহিত শর্মার দল। ফাইনাল ম্যাচের প্রেডিকশন করা খুব কঠিন হলেও, ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন পঞ্চমবারের জন্য আইপিএল ট্রফি যেতে চলেছে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের ঘরে।