শাজাহান আলি, ঝাড়গ্রাম: 'সরকারি প্রকল্পে কেউ টাকা চাইলে থানায় যান।' ঝাড়গ্রামে প্রশাসনিক বৈঠকে থেকে এবার কাটমানি ইস্যুতে কড়া বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুধু তাই নয়, সরকারি প্রকল্পে সুবিধা  থেকে যাতে একজন বাদ বা বঞ্চিত না হন, সেদিন নজর রাখারও নির্দেশ দিলেন প্রশাসনিক আধিকারিক ও দলের নেতার কর্মীদের। 

আরও পড়ুন: গৃহবধূকে শ্রীলতাহানির অভিযোগ, প্রতিবাদীকে বেধড়ক মারধর হাসনাবাদে

করোনা আতঙ্কের মাঝেই জেলা সফরে মুখ্যমন্ত্রী। সেপ্টেম্বরের শেষের দিকে প্রথমবার সশরীরে গিয়েছিলেন উত্তরবঙ্গে। এরপর মঙ্গলবার দু'দিন সফরে জঙ্গলমহলে হাজির হন তিনি। ভার্চুয়ালি নয়, সেদিন বিকেলে মুখোমুখি বসে পশ্চিম মেদিনীপুরের প্রশাসনিক আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠক করেন খড়গপুরের শিল্পতালুকে। বুধবার প্রশাসনিক বৈঠক হল ঝাড়গ্রামে।

যখন উত্তরবঙ্গে গিয়েছিলেন, তখন জলপাইগুড়ি থেকে রাজ্য জুড়ে পথশ্রী প্রকল্পের সূচনা করেছিলেন মুখ্য়মন্ত্রী। ঝাড়গ্রামে প্রশাসনিক বৈঠকে সেই প্রসঙ্গ তুলে তিনি বলেন, 'পথশ্রী প্রকল্পের কাজে বাধা দেবেন না। টেন্ডার নিয়ে কোনও গন্ডগোল যেন না হয়। সব পঞ্চায়েত, সব রাজনৈতিক নেতৃত্বকে বলছি। সরকারি প্রকল্পের সুবিধা দেওয়ার বিনিময়ে কেউ টাকা চাইলে সোজা থানায় যান। সরকার জনগণের। কোনও রাজনৈতিক দলের নয়।'

আরও পড়ুন: খুন নাকি আত্মহত্যা, বাগমুন্ডিতে ব্লক অফিস চত্বরে মিলল নৈশপ্রহরীর ঝুলন্ত দেহ

প্রশাসনিক বৈঠক থেকে ঝাড়গ্রামের কনক দুর্গা মন্দির সংস্কারের জন্য ২ কোটি টাকা বরাদ্দ করেন মুখ্য়মন্ত্রী। উন্নয়নের প্রশ্নে নাম না করে বিরোধীদের কটাক্ষ করতে ছাড়েননি তিনি। বলেন, 'ঝাড়গ্রামে অনেক কাজ হয়েছে। তা সত্ত্বেও যারা বড় বড় কথা বলছেন তারা আগে নিজেরা একটু কাজ করে দেখান।' এদিনের প্রশাসনিক বৈঠকে 'মাটির সৃষ্টি' প্রকল্প নিয়েও আলোচনা হয়। এই প্রকল্পের পতিত জমিকে উর্বর করে ফের কাজ লাগানোর পরিকল্পনা করেছে সরকার। তাতে প্রায় ৫ লক্ষ মানুষের কর্মসংস্থান বলে আশা প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী।