দারিদ্র্য দূরীকরণের পর এবার ১০০ দিনের কাজ। জাতীয় স্তরে ফের সেরার শিরোপা পাচ্ছে বাংলা।  ফেসবুকে পুরস্কারপ্রাপ্তি খবর জানিয়ে  রাজ্যবাসীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্বয়ং। ১০০ দিনের প্রকল্পে দেশের মধ্যে প্রথম বাঁকুড়া, আর দ্বিতীয় কোচবিহার জেলা। তালিকার দক্ষিণ ২৪ পরগণার কুলপির নাম উল্লেখ করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

কেন্দ্রে ক্ষমতায় তখন কংগ্রেসের নেতৃত্বাধীন ইউপিএ সরকার। দেশের কর্মসংস্থান বাড়ানো লক্ষ্যে চালু করা হয় একশো দিনের প্রকল্প। এই প্রকল্পে পঞ্চায়েতে মারফৎ একশোর দিনের জন্য কাজ পান স্থানীয় বাসিন্দারা। কেন্দ্রীয় সরকার পরিচালিত এই প্রকল্পে বরাবরই এগিয়ে পশ্চিমবঙ্গ। এর আগেও জাতীয় স্তরে বাংলার পারফরম্যান্স প্রশংসা কুড়িয়েছে।  শনিবার নিজের ফেসবুকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় লিখেছেন, 'আপনাদের খুব আনন্দের সঙ্গে জানাচ্ছি, একশো দিনের প্রকল্পের জাতীয় পুরস্কার পেয়েছেন পশ্চিমবঙ্গ। কেন্দ্রীয় গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রকের  বিচারে প্রথম পুরস্কার পেয়েছে বাংলা। সারা দেশে সেরা পারফরম্যান্সের জন্য প্রথম ও দ্বিতীয় পুরস্কার পেয়েছে বাঁকুড়া  ও কোচবিহার।'
রাজ্যের এই সাফল্যের জন্য সংশ্লিষ্ট সকলেই ধন্যবাদ ও অভিনন্দন জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর মতে, সকলে মিলে হাতে হাত মিলিয়ে কাজ না করলে, ১০০ জন প্রকল্পের জাতীয় স্তরে এ রাজ্য সেরা হতে পারত না। 

বস্তুত, স্রেফ বাঁকুড়া ও কোচবিহার একশো দিনের প্রকল্পের সেরার পুরস্কার পাচ্ছে, তা কিন্তু নয়। কেন্দ্রীয় গ্রামোনয়ন্ন মন্ত্রকের তালিকায় বিশেষভাবে প্রশংসা পেয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগণার কুলপির বাবুরমহল পঞ্চায়েতও। জাতীয় স্তরে এই পুরস্কার বাংলায় ১০০ দিনে প্রকল্পকে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে উৎসাহিত করবে বলে মনে করা হচ্ছে।