নক্কারজনক ঘটনা ধরা পড়ল দক্ষিণ কলকাতা হরিদেবপুরে। দীর্ঘদিন ধরেই স্থানীয় এক যুবক রাস্তার শারমেয়দের উপর যৌন অত্যাচার চালাত। মঙ্গলবার সকালে স্থানীয় পশুপ্রেমীদের হাতে সে ধরা পড়ে যায়। এই নিয়ে ওই এলাকায় তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়েছে।

গত বেশ কয়েক বছর ধরে ওই এলাকায় পথ কুকুরদের আহত অবস্থায় পাওয়া যাচ্ছিল। স্থানীয় পশুপ্রেমীরা জানিয়েছেন, ওই এলাকায় ইতিমধ্যেই অন্তত ২০টি কুকুরের মৃত্য়ুও হয়েছে। নিহত ও জখম কুকুরদের ডাক্তারি পরীক্ষা করে ধরা পড়েছিল, তারা যৌন অত্যাচারের শিকার হয়েছে। কিন্তু কে এই কাজ করছে, তা কেউ ধরতে পারছিলেন না। এই নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে আতঙ্কও ছড়িয়েছিল। তাঁরা ভয় পেয়েছিলেন এই বিকৃতকামীর কুনজর কুকুরদের ছাড়িয়ে এলাকার শিশুদের উপরও পড়তে পারে।

ধরা পড়ার পর বিকৃতকামী ওই যুবকের মুখে কালি লাগানো হয়, মাথায় ফাটানো হয় পচা ডিম

এই অবস্থায় সোমক চট্টোপাধ্যায় এবং ও তিতাস মুখোপাধ্যায় নামে স্থানীয় দুই পশুপ্রেমী আসরে নামে। একের পর এক কুকুরের মৃত্যু ও যৌন অত্যাচারের খবর পেয়ে তাঁরা ওই এলাকায় রাতের দিকে বেশ কয়েকদিন ধরেই ওঁত পেতে ছিলেন। তাতেই 'ছোট' নামে এলাকার এক যুবককে সনাক্ত করেন তাঁরা। এদিন সকালে এলাকাবাসীদের নিয়ে ওই দুই পশুপ্রেমী ওই সন্দেহভাজন যুবকের বাড়িতে হানা দেয়। ঘরে ঢুকতেই দেখা যায়, বিছানায় একটি ছোট্ট কুকুর নিয়ে সে শুয়ে রয়েছে। ঘরে বেশ কয়েকটি সিরিঞ্জের মধ্যে বিভিন্ন ধরণের ঘুমের ওষুধ-ও উদ্ধার করা হয়।

এরপরই উত্তেজিত এলাকার পশুপ্রেমীরা 'ছোট'কে বেধড়ক মারধর করে। তার মুখে কালি লাগানো হয়, মাথায় ফাটানো হয় পচা ডিম। এরমধ্যেই খবর যায় হরিদেবপুর থানায়। জনরোষের হাত ধেরে অভিযুক্ত ছোট-কে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে তারা। তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন এলাকাবাসী। .