উল্টোডাঙা উড়ালপুল ও বাঘাযতীন উড়ালপুলের পরে এবার বন্ধ হতে চলেছে শিয়ালদহ উড়ালপুল। যা বড়সর ভোগান্তি নিয়ে আসবে কলকাতাবাসীদের দৈনন্দিন জীবনে। সম্প্রতি কলকাতার এই দুটি উড়ালপুলে ফাটল দেখা যাওয়ার পরেই কেএমডিএ স্থীর করে একটি তালিকা তৈরি করবে যার মধ্যে থাকবে কলকাতার কিছু দুর্বল উড়ালপুলের নাম। সেই মতই তালিকা প্রস্তুত হতে শুরু করে।  কেএমডিএ ৪৮ টি উড়ালপুলকে এই দুর্বল উড়ালপুলের তালিকাভুক্ত করে। আর সেই তালিকার মধ্যেই উঠে আসে শিয়ালদহ উড়ালপুলের নাম। যার জেরেই আগামী ১৫ই আগস্ট থেকে ১৮ই আগস্ট বন্ধ থাকবে শিয়ালদহ উড়ালপুল। অর্থাৎ আগস্ট মাসের চার দিন বন্ধ থাকবে এই উড়ালপুল। যা শুনে মাথায় হাত বাস চালক থেকে শুরু করে যাত্রী সকলেরই। 

ওই চারদিন যানজটেরও আশঙ্কা করছে কলকাতা প্রশাসনের আধিকারিকেরা। কারণ শুধু কলকাতার লোকই নয় বাইরে থেকেও বহু সংখ্যক মানুষ কলকাতায় আসেন যাদের অনেককেই এই উড়ালপুল পার করে নানা জায়গায় যেতে হয়। ফলে এই উড়ালপুল বন্ধ হলে তারা কি ভাবে যাতায়াত করবে তাও ভাবাচ্ছে সকলকে। ১৯৭০ সালে তৈরি হওয়া এই উড়ালপুলটি বহুদিন ধরেই ধুঁকছে। পোস্তার বিবেকানন্দ উড়ালপুলটি যখন ভেঙে পরে তখনই উঠে এসেছিল শিয়ালদহ উড়ালপুলের  বেহাল দশার কথা। তারপরে প্রায় মানুষ এই কথা ভুলতেই বসেছিল। কিন্তু সাম্প্রতিক উল্টোডাঙা উড়ালপুলে ফাটল দেখা যাওয়ার পর থেকে নড়ে-চড়ে বসে কলকাতা কেএমডিএ।

উড়ালপুলের এই ফাটলটি সবার প্রথমে নজরে আসে সেখানে রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব থাকা আধিকারিকদের। তারা সেই কথা প্রশাসনকে জানান। এরপরই শুরু হয় উড়ালপুল সারাইয়ের পরিকল্পনা। ইতিমধ্যেই উড়ালপুলের নীচে থাকা দোকানগুলিকে খালি করার কথা বলা হয়েছে। যার জেরে ব্যাবসার ক্ষতি হতে পারে বলে জানাচ্ছেন দোকানের মালিকেরা। দুর্ঘটনা এড়াতে এই সারাই অত্যন্ত প্রয়োজন বলে জানাচ্ছেন কলকাতা প্রশাসনের আধিকারিকেরা। যানজটের আশঙ্কা করে প্রশাসন আগে থেকেই ব্যাবস্থার পরিকল্পনা করে ফেলেছে। যানজট এড়াতে যান চলাচলের রুট বদল করার কথাও ভাবছে কলকাতা পুলিশ। তবে যান চলাচল যথাযথ ভাবে বজায় রেখেই সব কাজটা হবে বলেও জানাচ্ছে তারা।