বক্সিং প্র্য়াকটিস করতে গিয়েই হঠাৎ মৃত্যু হল জ্যোতি প্রধানের। কাল বুধবার ভবানীপুরে বক্সিং প্র্যাকটিস করতে গিয়ে হঠাৎই মাথা ঘুরে পড়ে যান তিনি। ২০ বছরের জ্যোতিকে তাঁর সতীর্থরা জল দিয়ে সুস্থ করার চেষ্টা করেও তাঁর অবস্থার কোনও উন্নতি হয় না। 

তখন জ্যোতিকে এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকরা জানান, হাসপাতালে আসার আগেই হৃদরোগে মৃত্যু হয়েছে তাঁর। জানা গিয়েছে, জ্যোতি দরিদ্র পরিবারের মেয়ে। ১০ বছর ধরে তিনি বক্সিং প্র্যাকটিস করছেন। সঙ্গে ক্য়ারাটেও করতেন তিনি। বেশ কয়েকবার জাতীয় ও স্টেট লেভেলে অংশ নিয়ে পুরস্কারও জিতেছেন জ্যোতি।  একবার তিনি জাতীয় সোনার পদকও জিতেছেন। 

জ্যোতির পরিবার তাঁদের মেয়ের মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ। তাঁরা বিশ্বাস করতে পারছেন না, এভাবে মৃত্যু হয়েছে তাঁদের মেয়ের। তাঁরা জানিয়েছেন, দারিদ্রের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে কঠোর পরিশ্রম করে এই জায়গা নিজেই তৈরি করেছিলেন জ্যোতি প্রধান। জ্যোতির দেহ ইতিমধ্যেই ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। আগামীকাল ময়নাতদন্তের পরে তাঁর দেহ ছাড়া হবে বলে জানা গিয়েছে। যদিও চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েই মৃত্যু হয়েছে জ্যোতির।  জ্যোতির মৃত্যুতে এলাকায় নেমে এসেছে শোকের ছায়া।