আশঙ্কাই শেষ পর্যন্ত সত্যি হল। কোনওরকম ঝুঁকি না নিয়ে পুজোর আগে দুর্বল টালা ব্রিজের উপর দিয়ে বাস- সহ অন্যান্য বড় গাড়ি চলাচল বন্ধের নির্দেশ দিল রাজ্য সরকার। আপাতত শুধুমাত্র ছোট গাড়ি এবং পথচারীরাই সেতুর উপর দিয়ে চলাচল করতে পারবেন। ফলে পুজোর সময় বি টি রোড দিয়ে যাতায়াত করতে গিয়ে ব্যাপক হয়রানির মুখে পড়তে হতে পারে সাধারণ মানুষকে। যদিও, সাধারণ মানুষের হয়রানি যাতে কম হয়, তা নিশ্চিত করতে পরিবহণ দফতরকে নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। পুরমন্ত্রী জানান, মানুষের জীবন নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী কোনও ঝুঁকি নিতে চাননি বলেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আপাতত সেতুর যে যে জরুরি মেরামতি প্রয়োজন,অবিলম্বে সেই কাজও শুরু করা হবে। 

এ দিনের বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী ছাড়াও পূর্তমন্ত্রী, পুরমন্ত্রী ছাড়াও কলকাতা. বিধাননগর এবং ব্যারাকপুরের পুলিশ কমিশনার- সহ প্রশাসনের শীর্ষ কর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকের পরে পুরমন্ত্রী এবং মেয়র ফিরহাদ হাকিম জানান, পূর্ত দফতর এবং রাইটসের বিশেষজ্ঞরা লিখিত পরামর্শে জানিয়েছেন, এই মুহূর্তে টালা সেতুর উপর দিয়ে শুধুমাত্র ছোট গাড়ি এবং পথচারীরাই চলাচল করতে পারবে। 

পরিবহণ সচিব নারায়ণস্বরূপ নিগম জানিয়েছেন, টালা ব্রিজের উপর দিয়ে যাতায়াতকারী বাসগুলিকে ঘুরপথে চালানো হবে। বেশ কিছু বাসের রুট কাটছাঁটও করা হবে। শুধু তাই নয়, মানুষের ভোগান্তি কমাতে মেট্রো রেলের সঙ্গেও কথা বলেছে রাজ্য সরকার। যাতে নোয়াপাড়া থেকে আরও বেশি সংখ্যক মেট্রো চালানো হয়, সেই অনুরোধও করা হয়েছে। পণ্যবাহী যানবাহনগুলি বি টি রোড হয়ে কলকাতায় ঢুকতে কোনওরকম অসুবিধা না হয়, তাও নিশ্চিত করছে প্রশাসন। বিকল্প কোন পথে বাস এবং অন্যান্য ভারী যানবাহন চলবে, সংবাদপত্রে বিজ্ঞাপন দিয়ে তা জানিয়ে দেবে পরিবহণ দফতর। 

মুখ্যমন্ত্রী পরিবহণ দফতরকে পুলিশের সঙ্গে কথা বলে যান চলাচল নিয়ন্ত্রণের বিষয়টি চূড়ান্ত করতে বলেন। বাস এবং অন্যান্য বড় গাড়িকে টালা ব্রিজ এড়িয়ে কোন পথে চালানো হবে তা পুলিশের সঙ্গে কথা বলেই চূড়ান্ত করবে পরিবহণ দফতর।