আনন্দপুর কাণ্ডে নয়া মোড়। এবার খোদ নির্যাতিতা যুবতীর বিরুদ্ধেই চার্জ গঠনের অনুমতি চাইল পুলিশ। যা নিয়ে ৩৪ দিনের মাথায় আনন্দপুর কাণ্ডে অভিযুক্ত অভিষেক পান্ডের বিরুদ্ধে চার্জশিট দায়ের হল। 

১৫০ পাতার চার্জশিটের মধ্য়ে বিভিন্ন সাক্ষীর বয়ান বাদ দিলে মূল চার্জশিট ৬০ পাতার। এই মামলায় ৩২ জন সাক্ষী আছে। টিআই প্যারেড এখনও সম্পন্ন হয়নি। তবে থেকে বড় বিষয়, খোদ নির্যাতিতার বিরুদ্ধেই চার্জ গঠনের অনুমতি চেয়েছে পুলিশ। নির্যাতিতার বিরুদ্ধে জেনে শুনে ভুল তথ্য দেওয়া ও অভিযুক্তকে সাহায্য় করা ২০১ ও ২১২ ধারায় চার্জ গঠন করতে চাইছে মুকুন্দপুর থানার পুলিশ।  

সম্প্রতি জীবন বাজি রেখে যুবতীর শ্লীলতাহানি রোখেন নীলাঞ্জনা ভট্টাচার্য এবং তাঁর স্বামী দীপ শতপথী। তারা জানান, একটি নিমন্ত্রণ বাড়ি থেকে ইএম বাইপাস লাগোয়া আনন্দপুর থেকে ফেরার তোড়জোড় করছিলেন। সেই সময় আচমকাই তাঁরা খেয়াল করেন,  বাইপাসের কাছে অন্ধকার থেকে ভেসে আসছে নারী কন্ঠের 'বাঁচাও' আর্তনাদ। আওয়াজ শোনার পরই ওই যুবতীকে বাঁচাতে নেমে পড়েন তারা।  অভিযুক্ত গাড়িটা ততক্ষণে উদ্ধারকারীকে সামনে দেখতে পেয়ে, পায়ের উপর গাড়ি চালিয়ে দিয়েছে। এরপর দীপ ১০০ নম্বর করলে তাঁদের ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে পুলিশ।