কলকাতা বইমেলার ইতিহাসে বেনজির ঘটনা। বইমেলা চত্বরেই নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে হাতাহাতিতে জড়ালেন বিজেপি সমর্থকরা। পরে পুলিশের সঙ্গেও একপ্রস্ত ধস্তাধস্তি হয় বিক্ষোভকারী পড়ুয়াদের। প্রায় তিরিশ থেকে চল্লিশজন বিক্ষোভকারীকে আটক করে পুলিশ। ঘটনার জেরে বন্ধ করে দিতে হয় বইমেলার ৭ নম্বর গেট। পুলিশের মারে বেশ কয়েকজন বিক্ষোভকারী আহত হন বলেও অভিযোগ। 

এ দিন বইমেলা চত্বরে নাগরিকত্ব আইন, এনআরসি এবং এনপিআর- এর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন বেশ কিছু পড়ুয়া। তার মধ্যেই বিকেলের দিকে বিজেপি-র মুখপাত্র জনবার্তা-র স্টলে পৌঁছন দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক রাহুল সিনহা। তিনি সেখানে পৌঁছতেই স্টল-এর বাইরে বিক্ষোভ শুরু করেন পড়ুয়ারা। কিছুক্ষণের মধ্যেই জনবার্তা-র স্টল থেকে বিজেপি-র কয়েকজন কর্মী বেরিয়ে এসে পড়ুয়াদের সেখান থেকে সরে যেতে বলেন। বচসা থেকে দু' পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয়। 

পুলিশকর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে কোনওক্রমে পরিস্থিতি সামাল দেন। বিক্ষোভকারী পড়ুয়াদের কয়েকজনকে আটক করে পুলিশ। তাদেরকে বইমেলা চত্বরে পুলিশ ক্যাম্প- এ নিয়ে যাওয়া হয়। এর পর ওই পুলিশ ক্যাম্প-এর বাইরে গিয়ে আটক পড়ুয়াদের মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। তাঁদের সঙ্গে বেশ কয়েকটি মানবাধিকার সংগঠনের সদস্যরাও বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন। মাইক-এ ঘোষণা করে বিক্ষোভকারীদের শান্ত করার চেষ্টা করে পুলিশ। কিন্তু তাতেও বিক্ষোভ বন্ধ না হওয়ায় তিরিশ থেকে চল্লিশজন বিক্ষোভকারীকে আটক করে বিধাননগর উত্তর থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। 

বিক্ষোভকারীদের দাবি, মুখে আলোচনার কথা বললেও পড়ুয়াদের বেধড়ক মারধর করেছে পুলিশ। এমন কী, বিজেপি কর্মীদের বিরুদ্ধেও কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ। শেষ পর্যন্ত বইমেলার সাত নম্বর গেট বন্ধ করে দেয় পুলিশ। দীর্ঘক্ষণ বন্ধ রাখতে হয় গেট।