এবার জেএনইউ-তে বাম ছাত্রনেত্রী ঐশী ঘোষের 'রক্ত নিয়ে' প্রশ্ন তুললেন বিজেপির রাজ্য় সভাপতি দিলীপ ঘোষ। হামলার পর তাঁর গায়ে রক্ত না রং মাখানো ছিল তা পরীক্ষা হয়নি বলে দাবি করলেন বিজেপি নেতা। দিলীপের পাল্টা বক্তব্য়,জেএনইউ-এ পড়ুয়াদের উপর হামলার ঘটনা আসলে সাজানো। 

হাসপাতালে বসেই জানিয়েছিলেন হামলাকারীদের তাণ্ডবে মাথায় ১৬টা সেলাই লেগেছে তাঁর। রড দিয়ে এবিভিপির হামলাকারীরা তাঁর মাথা ফাটিয়ে দিয়েছে। গতকাল হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর সোজা চলে আসেন আন্দোলনে। অথচ সেই ঐশী ঘোষের বিরুদ্ধেই এদিন এফআইআর দায়ের করেছে দিল্লি পুলিশ। তবে পুলিসের অভিযোগনামায় ঐশী ছাড়াও উঠে এসেছে আরও ১৯ জনের নাম। এদের সবার বিরুদ্ধে নিরাপত্তারক্ষীদের উপর হামলা এবং সার্ভার রুমে ভাঙচুরের অভিযোগ আনা হয়েছে। যা ঘটেছিল জেএনইউ হামলার ঠিক একদিন আগে।

রবিবার রাতে জেএনইউ-এর এই হামলা নিয়ে ইতিমধ্য়েই সরব হয়েছে সোশ্য়াল মিডিয়া। ছাত্রদের ওপর হামলার প্রতিবাদ করেছেন খোদ অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন। যদিও এই ধরনের হামলাকে নাটক বলে ব্য়াখ্য়া করলেন দিলীপ ঘোষ। তাঁর দাবি, মাথার ব্যান্ডেজকে বার বার দেখানো হচ্ছে। ওটা রক্ত না রং, তা কিন্তু পরীক্ষা করে দেখা হয়নি। আসলে নাগরিকত্ব আইন ইস্যু থিতিয়ে আসছিল। তাই নতুন করে এই নাটক। তবে বিশ্ববিদ্য়ালয়ের ক্যাম্পাসে ঢুকে কেউ মারধর করলে তা পুলিশ খতিয়ে দেখবে। পুলিশি তদন্তেই সত্য সামনে আসবে।

ইতিমধ্য়েই এই ঘটনার দায় স্বীকার করেছে হিন্দুরক্ষা নামের একটি সংগঠন। যা নিয়ে দিলীপবাবু বলেন, ওরা করে থাকলে পুলিশ ওদের ধরবে। এর মধ্য়ে কোনও কিন্তু থাকতে পারে না। তবে জেএনইউ-তে হামলায় যাদবপুরের প্রসঙ্গ টানতে ভোলেননি তিনি। জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়াদের উপর হামলার ঘটনার সঙ্গে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়কে হেনস্থার ঘটনাও টানেন তিনি। বিজেপির  রাজ্য় সভাপতি বলেন, যারা রাজ্যপালের কনভয় আটকানোর মত ঘটনা ঘটাল, কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে হেনস্থা করল,সেই ঘটনায় এফআইআর হল না।