করোনা মহামারির জেরে ভাটা পড়েছে স্বাভাবিক জীবনে। থমকে গিয়েছে মানুষের জীবনের গতি পথ। করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির আশঙ্কা রয়েছে পুজোর পরেও। আগে যেভাবে ক্লাবে ক্লাবে গিয়ে পুজো উদ্বোধন করতেন মুখ্যমন্ত্রী। করোনার থাবায় এবছর তা হচ্ছে না। কলকাতার অধিকাংশ পুজোই তিনি ভার্চুয়ালে উদ্বোধন করবেন মমতা। 

আরও পড়ুন-পুজোর ঢাকে পড়ল কাঠি, চেতলা অগ্রণী ক্লাবে পুজোর উদ্বোধন করলেন মুখ্যমন্ত্রী

সোমবার নবান্ন থেকে এবছরের পুজোয় করোনা স্বাস্থ্যবিধি মানতে পুজো কমিটিগুলিকে ইতিমধ্যেই নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। পুজো প্যান্ডেলে ঢোকার সময় মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক বলে নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। পুজো উদ্যোক্তাদের কোভিড সতর্কতা পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পালনের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে রাজ্য সরকারের তরফে। করোনা সংক্রমণ রুখতে দূরত্ববিধি মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। উৎসবের মুরসুমে সংক্রমণ রুখতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে বিশেষ নির্দেশ দেওয়া হয়েছে স্বাস্থ দফতরের তরফে। এবছর ধুমধাম করে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান বাতিল করার পরামর্শ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। 

আরও পড়ুন-করোনা পরিস্থিতিতে পুজোয় মুখ্যমন্ত্রীর সতর্কবাণী, 'মাস্ক না পরলে প্যান্ডেলে ঢোকা নিষেধ'

পুজোর উদ্বোধন সংক্রান্ত বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, উদ্যোক্তারা যদি চাই তাহলে তিনি নবান্ন থেকে ভার্চুয়ালে পুজোর উদ্বোধন করবেন। তার জন্য পুজো কমিটির সদস্যরা নবান্ন আসার পরই ওই ক্লাবের পুজো উদ্বোধন করবেন মুখ্যমন্ত্রী। তবে করোনার কথা মাথায় রেখে অতিরিক্ত ভিড় করা যাবে না বলে নিষেধাঞ্জা মমতার। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আগামী ১৫ অক্টোবর উত্তর কলকাতা, ১৬ অক্টোবর বেহালা ও যাদবপুরের পুজো এবং ১৭ অক্টোবর দক্ষিণ কলকাতার পুজোর উদ্বোধন করবেন মুখ্যমন্ত্রী।