লঘু পাপে কার্যত গুরুদণ্ড! বলবিন্দর সিং গ্রেফতারিকাণ্ডে টুইট করে ফের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায় ও রাজ্য পুলিশকে কড়া বার্তা দিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধানখড়। স্মরণ করিয়ে দিলেন জালিওয়ানাবাগ হত্যাকাণ্ড ও রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নাইট উপাধি প্রত্যাখ্যানের ঘটনাও।

ঘটনার সূত্রপাত ৮ অক্টোবর। সেদিন সাতদফা দাবিতে নবান্ন  অভিযানের ডাক দিয়েছিল বিজেপি। কলকাতা ও হাওড়া থেকে চারটি মিছিল করে যখন নবান্নে দিকে যাচ্ছিলেন দলের কর্মী-সমর্থকরা, তখন রাস্তায় তাঁদের পুলিশ বাধা দেয় বলে অভিযোগ।  গেরুয়াশিবিরের দাবি, দলের কর্মীদের জন্য 'অমানবিক' অত্যাচার করেন কর্তব্যরত পুলিশকর্মীরা। ব্যারিকেড ভাঙার চেষ্টা-ইঁটবৃষ্টি-লাঠিচার্জ-বিক্ষোভ, বাদ যায়নি কিছুই। রীতিমতো রণক্ষেত্র চেহারা নিয়েছিল সাঁতরাগাছি, হাওড়া ময়দান, হাওড়া ব্রিজ ও হেস্টিংস চত্বর। 

হাওড়া ময়দান এলাকায় বিজেপি মিছিলের পিছনে ধাওয়া করে পুলিশ। পাকড়াও করা হয় বলবিন্দর সিং নামে এক ব্যক্তিকে। তাঁর কাছ থেকে উদ্ধার হয় আগ্নেয়াস্ত্র। কে এই বলবিন্দার সিং? কেনই বা আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে মিছিল যোগ দিয়েছিলেন তিনি? বিজেপি-এর তরফে বলা হয়, তিনি দলের যুব মোর্চার নেতা প্রিয়াঙ্কুর পাণ্ডে-এর ব্যক্তিগত নিরাপত্তারক্ষী। ফলে তাঁর কাছে আগ্নেয়াস্ত্র থাকাটা খুবই স্বাভাবিক। হাওড়া সিটি পুলিশের পাল্টা দাবি, ওই আগ্নেয়াস্ত্রটি জম্মু-কাশ্মীরের রাজৌরি থেকে ইস্যু করা হয়েছে। ভিনরাজ্য থেকে কার্যত বেআইনিভাবে অস্ত্রটি আনা হয়েছে বাংলায়। যা নিয়ে জমে উঠেছে বিতর্ক।

সোমবার বলবিন্দার সিং-কে গ্রেফতার করা নিয়ে টুইট করে মুখ্যমন্ত্রী ও রাজ্য পুলিশকে একহাত নেন রাজ্যপাল জগদীপ ধানখড়। ফের তিনি টুইট করলেন মঙ্গলবারও। ভিডিও বার্তায় ব্রিটিশ আমলে জালিওয়ানাবাগ হত্যাকাণ্ড ও রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নাইট উপাধি প্রত্যাখানের প্রসঙ্গও তুললেন তিনি।