নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে রাজ্য জুড়ে চলতে থাকা তাণ্ডব এবং অশান্তি রুখতে এবার কলকাতা হাইকোর্টের হস্তক্ষেপ চেয়ে মামলা দায়ের হল। মামলা দায়েরের অনুমতিও দিয়েছে প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ। মঙ্গলবারই এই মামলার শুনানি হতে পারে। 

স্মরজিৎ রায়চৌধুরী নামে একজন আইনজীবী এ দিন সকালে রাজ্য জুড়ে চলতে থাকা বিশৃঙ্খলার ঘটনা তুলে ধরে প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। তিনি অভিযোগ করেন, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী সংবিধান মানছেন না। পশ্চিমবঙ্গ সরকারের লোগো লাগিয়ে কেন্দ্রীয় আইনের বিরোধিতা করে বিজ্ঞাপন দেওয়া হচ্ছে। মুখ্যমন্ত্রী এমন বিরোধিতা না করলে রাজ্যে এই অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি এড়ানো যেত বলেও দাবি করেন ওই আইনজীবী। প্রতিবাদের নামে রাজ্যে অরাজকতা বাড়তে থাকায় আদলতের হস্তক্ষেপ চেয়ে আবেদন জানান স্মরজিৎবাবু। বিজেপি নেতা সুরজিৎ সাহার হয়ে স্মরজিৎবাবু এই মামলা দায়ের করছেন বলে খবর।

ওই আইনজীবীর আবেদনের ভিত্তিতে মামলা দায়েরের অনুমতি দেয় প্রধান বিচারপতি থোট্টাথিল ভাস্করণ রাধাকৃষ্ণনর ডিভিশন বেঞ্চ। এ দিন বেলা দুটো নাগাদ মামলার শুনানি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। 

অন্যদিকে কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিমের বক্তব্যের বিরোধিতা করেও কলকাতা হাইকোর্টে একটি মামলা দায়ের হয়েছে। সুমন ভট্টাচার্য  নামে এক ব্যক্তির হয়ে আইনজীবী তরুণজ্যোতি তিওয়ারি কলকাতার মেয়রের বক্তব্যকে উস্কানিমূলক বলে দাবি করে এই মামলা দায়ের করেছেন। গত শনিবার রাজ্যে হিংসা বন্ধের আবেদন জানিয়ে একটি বক্তব্য রাখেন ফিরহাদ হাকিম। সেখানে তিনি দাবি করেছিলেন, এ ভাবে বিশৃঙ্খলা চলতে থাকলে সংখ্যালঘুদের উপরে ক্ষুব্ধ হবেন সংখ্যাগুরুরা। মামলাকারীর অভিযোগ, পুরমন্ত্রীর এই বক্তব্য অশান্তিতে ইন্ধন জুগিয়েছে। পুরমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া আর্জি জানিয়ে মামলা দায়ের হয়েছে হাইকোর্টে। পাশাপাশি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করে যাতে অশান্তি নিয়ন্ত্রণে আনা যায়, সেই আবেদনও করা হয়েছে।  মঙ্গলবার মামলাটির কথা উল্লেখ করে আদালতের কাছে দ্রুত শুনানির আবেদন জানানো হতে পারে।