রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ভোটব্যাঙ্ক সুরক্ষিত করার জন্য মুসলিম তোষণ করেন,এই অভিযোগ বারবার শুনতে হয়েছে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ক। হিজাব পরে তাঁর ইফতার পালন বা ইমাম ভাতা প্রদান নিয়ে অভিযোগের জেরে জেরবার হয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে এবার ছবিটা বদলে যাচ্ছে। সৌজন্যে ববি হাকিমের ঘোষণা 

কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম ঘোষণা করেছেন, এবার শ্মশানের অগ্রদানী পুরোহিতদের সৎকার পিছু ভাতা দেওয়া হবে। কলকাতা এবং তার পার্শ্ববর্তী শ্মশানগুলিতে মোট ৪৯ জন পুরোহিতকে এ যাবৎ চিহ্নিত করা হয়েছে এই ভাতা প্রদানের জন্যে।

ফিরহাদ হাকিম জানিয়েছেন, 'আমরা এই প্রকল্প যত শিগগির সম্ভব বাস্তবায়ন করার চেষ্টা করছি। এই মুহূর্তে এই পুরোহিতদের প্রায় কোনও আয় নেই। মৃতের পরিবার  যেটুকু দেন সেটুকুর উপরেই ভরসা করে তাঁদের সংসার চলে।' 

এই মুহূর্তে প্রতিটি পারলৌকিক ক্রিয়া কর্মের জন্য পুরোহিতদের ৩৮০ টাকা করে দেওয়া হবে। 'মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন সরকার সমাজের সব স্তরের মানুষের মানুষের পাশে রয়েছে', প্রকল্পটি সম্পর্কে  এমনটাই বললেন ডেপুটি মেয়র অতীন ঘোষ। 

প্রশাসনের এহেন সিদ্ধান্তে খুশি পুরোহিত সমাজ। তবে তৃণমূলের রাজনীতিকে এই ক্ষেত্রেও খোঁচা দিতে ছাড়ছেন না বিরোধীরা। তাঁদের দাবি, শুধু অগ্রদানী পুরোহিত কেন সমাজের অন্যান্য পুরোহিতরা কী দোষ করল! 

একদল আবার বলছেন, মুসলমান ভোট ব্যাংকের উপর আস্থা হারিয়েছেন,মমতা আর মমতার উপর আস্থা হারিয়েছে হিন্দুরা। তাই পরবর্তী বিধানসভায় হিন্দু ভোটকে ফিরে পেতেই মমতা এই চাল  দিচ্ছেন। প্রসঙ্গত, শুধুমাত্র কলকাতা পুরসভার অধীনস্থ ৭টি শ্মশানে নিযুক্ত পুরোহিতদেরই ভাতা দেওয়া হবে।