কোভিডের ভয়াবহতার মাঝেই রাজ্যে নতুন করে তিনজনের শরীরে নিশ্চিত ব্ল্যাক ফাংগাস ধরা পড়েছে। ব্ল্যাক ফাংগাসে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারিয়েছেন আরও একজন নাগরিক। ব্ল্যাক ফাংগাসে আক্রান্ত হয়ে রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে ৩  জনের।  এখানে আশঙ্কার বিষয় এটাই যে কোভিড থেকে সেরে উঠতেই অনেকেই আক্রান্ত  হন  ব্ল্যাক ফাংগাস বা মিউকরমাইকোসিস বিরল রোগে। 

আরও পড়ুন, CBI সেজে ব্যবসায়ীকে অপহরণ, পুলিশের জালে আরও এক পান্ডা  


 ব্ল্যাক ফাংগাসে আক্রান্ত হয়ে ৪৭ বছরের এক ব্যক্তি শনিবার প্রাণ হারিয়েছেন। ব্ল্যাক ফাংগাসে আক্রান্ত হয়ে রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে ৩  জনের।  উল্লেখ্য ব্ল্য়াক ফাংগাস বা মিউকরমাইকোসিস একটি বিরল ফাঙ্গাল সংক্রমণ। এর ফলে ৫৪ শতাংশ মৃত্যু আশঙ্কা থাকে। রোগীর শারীরিক অবস্থা এবং কতটা জোরাল ফাংগাস, তার উপরই নির্ভর করে মৃত্যুর ভার। বহু ক্ষেত্রেই কোভিড রোগীর অবনতি হওয়ার পিছনে রয়েছে এই ব্ল্যাক ফাংগাস। উল্লেখ্য, কলকাতায়  ব্ল্যাক ফাংগাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম মৃত্যু হয় এক যুবতির। শম্ভুনাথ পণ্ডিত হাসাপাতালে  ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত  ৩২ এর এ শম্পা চক্রবর্তী চিকিৎসাধীন অবস্থায় প্রাণ হারিয়েছিলেন। কোভিড রোগীরা বেশি দিন আইসিইউ তে থাকলেও বা তাঁদের উপরে স্টেরয়েডর ব্যবহার বেশি হলে রোগ প্রতিরোধ কমে যায়। তখনই ব্ল্যাক ফাংগাস শরীরে ঢুকে পড়ে। এই যুবতীর ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে।  

আরও পড়ুন, 'নির্বাচন হেরে প্রতিশোধ নিচ্ছে কেন্দ্র-এটা কি দরকার ছিল', 'আলাপন' ইস্যুতে বিস্ফোরক কুণাল-অধীর  
  

 প্রসঙ্গত,  এই ব্ল্যাক ফাংগাস বা কালো ছত্রাকে কেউ আক্রান্ত হলে কেন্দ্রকে সে খবর জানাতে হবে। এখানে আশঙ্কার বিষয় এটাই যে কোভিড থেকে সেরে উঠতেই অনেকেই আক্রান্ত  হন  ব্ল্যাক ফাংগাস বা মিউকরমাইকোসিস বিরল রোগে।  মিউকরমাইকোসিস এই বিরল রোগ মিউকরমাইসেটিস ফাঙ্গি থেকে হয় । যা  সরাসরি মস্তিষ্ক, সাইনাস এবং ফুসফুসকে আক্রমণ করে। সাইনাসের যন্ত্রণা, নাক বন্ধ হয়ে যাওয়া, মাথা ব্যাথা, ফোলা ভাব, দাঁতে ব্যাথা এই রোগের প্রথামিক উপসর্গ। ডায়বেটিকদের ক্ষেত্রে এই রোগ খুব আশঙ্কা জনক।