জুড়ে নয়, দূরে থাকুন।  'সোশ্য়াল ডিসট্যান্সিং' নিয়ে নিয়ে গতকালই এই বার্তা দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। দেখা যাচ্ছে, দেশজুড়ে লকডাউনের পরও বাজারে ভিড় জমাচ্ছে মানুষজন। যা নিয়ে নবান্নে উদ্বেগ প্রকাশ করলেন স্বয়ং মুখ্য়মন্ত্রী। গাদি খেলার ছকে দেখিয়ে দিলেন, দোকানে গেলে কীভাবে দাঁড়ালে ছুঁতে পারবে না করোনা।

বুধবার দুপুরে সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, লকডাউনেও যাতে মানুষের অসুবিধা না হয় তাই  নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দোকান খোলা থাকবে। অযথা লকডাউন নিয়ে আতঙ্কের কিছু নেই। কিন্তু দোকানের বাইরে যেন জটলা না হয়,সেকারণে  সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং মেনে চলার কতা বলেছেন মুখ্য়মন্ত্রী। এরপরই প্রতমে ছোট কাগজে এঁকে দোকানে দাঁড়ানোর পন্থা বলে দেন মমতা। কিন্তু ক্য়ামেরায় সেই ছবি ঠিক মতো না আসায় বোর্ড আনতে বলেন তিনি। পরে সচিবরা বোর্ড ধরে রাখলে নিজেই ছবি এঁকে বুঝিয়ে দেন  দূরত্ব রাখার বিষয়ে।

মুখ্য়মন্ত্রী বলেন,আগে যেভাবে গাদি খেলায় এক্কা, দোক্কা খেলতাম ঠিক তেমন ভাবেই দাঁড়াতে হবে দোকানের বাইরে। এরপরি বোর্ডেও কয়েকটি ছক কেটে করোনা রোখার পথ দেখিয়ে দেন তিনি। সেখানে দেখা যাচ্ছে সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিং এর জন্য দোকানগুলোর সামনে এক মিটার অন্তর চক পেন্সিল দিয়ে গোলাকার বা চৌকো ঘর কাটা আছে। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গে এধরনের ছবি এখনও দেখা যায়নি। জেলায় জেলায় এই পদ্ধতিতেই বাজারে সোশ্য়াল ডিস্ট্য়ান্সিং বজায় রাখতে  নির্দেশ দিয়েছে পুলিশ।