মহার্ঘ ভাতা পেতে চলেছেন রাজ্যের সরকারি কর্মচারীরা। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘোষণা মতোই নবান্নের বিজ্ঞতিতে নিশ্চিত জানুয়ারি থেকেই রাজ্যের সরকারি কর্মচারীরা হাতে পাচ্ছে বাড়তি টাকা।বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, যে সকল কর্মীর বেতন ২ লাখ ১ হাজার টাকার মধ্য়ে তারা সকলেই পয়লা জানুয়ারী থেকে আরও ৩ শতাংশ হারে মহার্ঘ ভাতা পাবেন। 

উপকৃত হবেন রাজ্যের সকল সরকারি কর্মচারী এবং পেনশনভোগীরা


 মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘোষণা মতোই নবান্নের বিজ্ঞতিতে নিশ্চিত জানুয়ারি থেকেই রাজ্যের সরকারি কর্মচারীরা হাতে পাচ্ছে বাড়তি টাকা। সোমবার অর্থ দফতরের তরফে বিজ্ঞপ্তি জারি করে বলা হয় ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে ৩ শতাংশ হারে মহার্ঘভাতা দেওয়ার কথা জানানো হয়। উপকৃত হবেন রাজ্যের সকল সরকারি কর্মচারী এবং পেনশনভোগীরা। ষষ্ঠ বেতন সুপারিশের নির্দেশে জানুয়ারি থেকে আরও এক কিস্তি মহার্ঘ ভাতা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, যে সকল কর্মীর বেতন ২ লাখ ১ হাজার টাকার মধ্য়ে তারা সকলেই পয়লা জানুয়ারী থেকে আরও ৩ শতাংশ হারে মহার্ঘ ভাতা পাবেন। এতে মহার্ঘ ভাতার দেওয়ার হার ১২৫ থেকে বেড়ে ১৩৩ শতাংশ হবে। নতুন বছরের অপেক্ষায় স্বাভাবিকভাবেই চেয়ে আছে সমস্ত সরকারি কর্মচারী।

জল গড়িয়ে অনেক দূর

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালে  ২৬ জুলাই   স্য়াট নির্দেশ দিয়েছিল ৩ মাসের মধ্য়ে বকেয়া টাকা মেটাতে হবে।  কিন্তু ওই রায়কে ,চ্য়ালেঞ্জ জানিয়ে রিভিউ পিটিশন দাখিল করে রাজ্য। আর নবান্নের আর্জি খারিজ হয়ে যায় স্যাটে। বহাল থাকে ২০১৯ সালের রায়। স্য়াটের নির্দেশ অনুযায়ী পরবর্তী ৬ মাসের মধ্যে রাজ্য সরকারী কর্মীদের বকেয়া টাকা মিটিয়ে দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু রাজ্য সরকার সেই ডিএ না দেওয়ায় সরকারি কর্মীদের সংগঠন স্যাটে আদালত অবমাননার মামলাও দায়ের করে।রাজ্য পুনরায় স্য়াটে রিভিউ পিটিশন দায়ের করে। এই আইনি লড়াই-এর মধ্যেই কর্মী সংগঠনের চিঠি যায় মমতা বন্দ্য়োপধ্যায়ের কাছে। সেই চিঠির প্রেক্ষিতেই মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায় ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে ঘোষণা করে, নতুন বছরে ৩ শতাংশ হারে ডিএ দেওয়া হবে।