হায়দরাবাদ গণধর্ষণ মামলায় এনকাউন্টার নিয়ে দেশজুড়ে এখনও চুলচেরা বিশ্লেষণ চলছে। এরই মধ্যে ফের উঠে এল পার্কস্ট্রিট গণধর্ষণ ইস্যু। পার্কস্ট্রিট কেসে অভিযুক্ত মহম্মদ আজহার আলির আবেদন করেছিল, দ্রুত যেন বিচারপ্রক্রিয়া শেষ হয়। কারণ নিম্ন আদালতে এখনও বিচারই শুরু হয়নি। কিন্তু আলির মামলায় হস্তক্ষেপ করল না কলকাতা হাইকোর্ট। 

হাইকোর্টের আবেদনে আলির আইনজীবী আর্জি জানান, নিম্ন আদালতে যেন দ্রুত বিচারপ্রক্রিয়া শেষ হয়। কিন্তু নিম্ন আদালতে চলা মামলাটিতে হস্তক্ষেপ করতে চাইলেন না রাজ্যের উচ্চ আদালতের বিচারপতি জয় সেনগুপ্ত।     

২০১২ সালের ফেব্রুয়ারিতে লিফট দেওয়ার নাম করে পার্কস্ট্রিটের একটি নাইট ক্লাবের বাইরে থেকে এক মহিলাকে গাড়িতে তুলেছিল ৫ যুবক। সুমিত বাজাজ, নাসির খান, রুমান খান নামে তিনজন গ্রেফতার হলেও কাদের খান এবং মহম্মদ আজহার আলি পলাতক ছিল। ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে প্রথম তিন অভিযুক্তকে দোষী সাব্যস্ত করে কলকাতার নগর দায়রা আদালত। তাদের ১০ বছরের কারাদণ্ড দেয় নিম্ন আদালত। কিন্তু ওই বছরেরই ১৩ মার্চ নির্যাতিতা এনসেফালাইটিসে আক্রান্ত হয়ে মারা যায়। 

২০১৬ র ২৯ সেপ্টেম্বর গাজিয়াবাদ থেকে কাদের ও আলি গ্রেফতার হয়। ২০১৮ সালের এপ্রিলে দু'জনের বিরুদ্ধে চার্জগঠন হলেও এখনও পর্যন্ত বিচার প্রক্রিয়া শুরু হয়নি৷