ব্যস্ত সময় হোক বা অল্প বৃষ্টি। গাড়ির চাহিদা একটু বাড়লেই হু হু করে বাড়তে থাকে সার্জ প্রাইস। এক এক সময় তা রীতিমতো আমজনতার আয়ত্তের বাইরে চলে যায় বলেও ওলা- উবেরের বিরুদ্ধে দীর্ঘদিনের অভিযোগ। অথচ মিটার ট্যাক্সি কমে যাওয়ায় শহরবাসীর কাছে যাতায়াতের অন্যতম মূল ভরসাই দুই অ্যাপ ক্যাব সংস্থার গাড়ি। মানুষের এই চাহিদার সুযোগ নিয়েই দুই সংস্থা ইচ্ছেমতো ভাড়া বাড়াচ্ছে বলেও শুধু যাত্রীরাই নন, ক্ষুব্ধ গাড়ির মালিকরাও। 

কলকাতায় ওলা- উবেরের এই একচেটিয়া আধিপত্যে কি এবার কিছুটা লাগাম টানা যাবে। গত দু' মাসে কলকাতায় নতুন দু'টি অ্যাপ ক্যাব সংস্থার আগমনের পরে অন্তত সেরকমই আশা করছে সংশ্লিষ্ট মহল। কারণ এই দুই সংস্থারই দাবি, যাত্রীদের থেকে তারা কোনও সার্জ চার্জ আদায় করবে না। সাধারণ এসি ট্যাক্সির মতোই নির্দিষ্ট ভাড়া দিতে হবে যাত্রীদের। 

সরকারি বেঁধে দেওয়া দর অনুযায়ী এসি মিটার ট্যাক্সির ভাড়া কিলোমিটার পিছু ১৮ টাকা ৭৫ পয়সা। কলকাতায় গত মাস থেকে পরিষেবা দিতে শুরু করা ওবে ক্যাবসও যাত্রীদের থেকে এই হারেই ভাড়া নেবে বলে দাবি করেছে। এই মাস থেকেই কলকাতায় ব্যবসা শুরু করছে কিউ ক্যাবস নামে আরও একটি অ্যাপ ক্যাব সংস্থা। তাদেরও দাবি, যাত্রীদের থেকে নির্দিষ্ট হারেই ভাড়া নেবে তারা। 

গত বছর কলকাতায় জাস্ট গো নামেও একটি অ্যাপ ক্যাব সংস্থা পরিষেবা দিতে শুরু করেছিল। কিন্তু তার পরেও ওলা, উবেরের একচেটিয়া আধিপত্য কমেনি। তার অন্যতম মূল কারণ, ওই দুই সংস্থাতেই নথিভুক্ত করা গাড়ির সংখ্যা বেশি। ফলে প্রয়োজনে বেশি ভাড়া দিয়েও দ্রুত গাড়ি পেয়ে যান মানুষ। 

এই মুহূর্তে কমবেশি চল্লিশ হাজার গাড়ি বিভিন্ন অ্যাপ ক্যাব সংস্থায় চলে। সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই ওবে ক্যাবসে প্রায় বারো হাজার গাড়ি নথিভুক্ত হয়েছে। যদিও সংস্থার অ্যাপের প্রযুক্তিগত কাজের জন্য এই মুহূর্তে কলকাতায় তাদের পাঁচশো মতো গাড়ি চলছে। কিন্তু ভবিষ্যতে ওই সংস্থা ওলা, উবেরকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিতে পারে বলেই আশাবাদী গাড়ির মালিকরাও। যাত্রীদের মতো তাঁরাও চাইছেন ওলা, উবেরের একচেটিয়া দাপট কমুক। কারণ তাঁদের অভিযোগ, যাত্রীদের থেকে অনেক বেশি ভাড়া নিলেও চালক বা গাড়ির মালিককে প্রাপ্য ভাড়া মেটাচ্ছে না দুই সংস্থাই। 

অ্যাপ ক্যাব মালিকদের সর্বভারতীয় সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক বিজ্ঞানী প্রামাণিক বলেন, 'সরকারের বেঁধে দেওয়া কোনও নিয়মই মানছে না ওলা এবং উবের। আমরা সবকিছুই রাজ্য সরকারকে জানিয়েছি, কিন্তু তাতেও কাজের কাজ হয়নি। অন্যান্য কয়েকটি সংস্থা কলকাতায় পরিষেবা শুরু করলেই ছবিটা বদলাবে।' 

যাত্রীদের হাতে বিকল্প বাড়লে ওলা এবং উবের চাপে পড়তে বাধ্য। সেক্ষেত্রে যাত্রীরা সত্যিই কতটা উপকৃত হন, সেটাই এখন দেখার।