ভাড়া বাড়িতে ছেলের সঙ্গে থাকতেন বৃদ্ধা মা। বেশ কিছুদিন ধরে জন্ডিসে ভুগে মৃত্যু হয় ছেলের। কিন্তু শয্যাশায়ী মায়ের পক্ষে সেই খবর কাউকে জানানো সম্ভব হয়নি। শেষ পর্যন্ত দরজা ভেঙে ছেলের পচাগলা মৃতদেহ উদ্ধার করল পুলিশ। চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হল বৃদ্ধাকে।

মর্মান্তিক এই ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ কলকাতার রামগড় এলাকায়। পুলিশ জানিয়েছে, ডি/৫২/২ রামগড়ে একটি বাড়ির একতলায় ভাড়া থাকতেন সোমনাথ কুণ্ডুর সঙ্গে ভাড়া থাকতেন ওই বৃদ্ধা। প্রায় বছর পাঁচেক তাঁরা ওই বাড়িতে ভাড়া থাকতেন বলে বাড়ির মালিক পুলিশকে জানিয়েছেন। গত কয়েকদিন ধরেই ঘরের দরজা ভিতর থেকে বন্ধ ছিল। শেষ দু' দিন ধরে ঘরের ভিতর থেকে পচা গন্ধ পাচ্ছিলেন প্রতিবেশীরা। সন্দেহ হওয়ায় এ দিন সন্ধ্যায় নেতাজি নগর থানায় খবর দেন স্থানীয় বাসিন্দারা। পুলিশ এসে দরজা ভেঙে ঘরের ভিতরে ঢোকে। দেখা যায় মৃত ছেলেকে নিয়েই ঘরের মধ্যে রয়েছেন শয্যাশায়ী বৃদ্ধা। পুলিশ বা প্রতিবেশীরা ডাকলেও তাঁর পক্ষে দরজা খোলা সম্ভব হয়নি। 

মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায় পুলিশ। পাশাপাশি, বৃদ্ধাকে চিকিৎসার জন্য এমআর বাঙুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ প্রাথমিক ভাবে জানতে পেরেছে, প্রায় পনেরো দিন ধরে জন্ডিসে ভুগছিলেন বছর উনচল্লিশের সোমনাথ কু্ণ্ড। সেই কারণেই মৃত্যু হয়েছে তাঁর। ওই বৃদ্ধার আত্মীয়দের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করছে পুলিশ।