নরেন্দ্রপুরে দম্পতি খুনের ঘটনায় এবার এক নতুন তথ্য উঠে এল। প্রথমে এই ঘটনাকে ডাকাতি করতে এসে খুনই মনে করা হচ্ছিল। কিন্তু পুলিশ জানিয়েছে, শুধু লুঠ নয়, এর পিছনে ব্যক্তিগত আক্রোশও ছিল। 

মঙ্গলবার নরেন্দ্রপুরের বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয় প্রদীপ বিশ্বাস ও আলপনা বিশ্বাসের দেহ। বাগানবাড়ির ট্রলির মধ্যে থেকে উদ্ধার করা হয় দম্পতির দেহ। ওই বাগানবাড়ির দায়িত্বে ছিলেন দম্পতি। প্রথমে পুলিশের অনুমান ছিল, লুঠ করতে এসেই দুষ্কৃতীরা খুন করেছে তাঁদের। কিন্তু সম্প্রতি ঘটনার মোড় অন্যদিকে ঘোরার আভাস পেয়েছে পুলিশ। 

আরও পড়ুনঃ বাথরুমের মধ্যে জোড়া ট্রলি ব্যাগ, ভিতর থেকে উদ্ধার দম্পতির দেহ

পুলিশ আলপনা বিশ্বাসের কল রেকর্ড চেক করে জানতে পেরেছে এক সন্দেহভাজনের নাম। ওই ব্যক্তির সঙ্গে প্রায়ই নাকি আলপনা দেবীর কথা হতো বলে জানিয়েছে পুলিশ। এছাড়া বাগানবাড়ির মালিকের সঙ্গেও সমস্যা ছিল তাঁদের। 

পুলিশের দাবি, খুনিরা প্রদীপ ও আলপনা বিশ্বাসের পরিচিত। কিন্তু ঠিক কী কারণে খুন করা হল, তা নিয়ে এখনও জলঘোলা চলছে। বাগানবাড়ির কেয়ারটেকার হয়েও কী ভাবে এত স্বচ্ছল জীবনযাপন করতেন তা নিয়ে খোঁজ খবর করছে পুলিশ।