দিন থেকে রাত নামলেও মিলল না সমাধানসূত্র। শিক্ষামন্ত্রী সঙ্গে কথা বলেও আশ্বস্ত হলেন না প্রাথমিক শিক্ষকরা। শেষ কোনও আশ্বাসবাণী না পেয়ে অবস্থান বিক্ষোভেই পতে বসে রইলেন প্রাথমিক শিক্ষকরা।

আশা দেখা গেলেও নিরাশা নিয়ে পথে ফিরলেন প্রাথমিক শিক্ষকরা। এদিন বেতন কাঠামোয় বৈষম্যের অভিযোগে প্রতিবাদে নামে উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারি টিচারস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন। বুধবার শিক্ষামন্ত্রীর নাকতলার বাড়িতে স্মারকপত্র জমা দেওয়ার কথা ছিল প্রতিবাদী শিক্ষকদের। কিন্তু পথেই তাঁদের মিছিল আটকায় পুলিশ। বাধ্য় হয়ে নিজেদের দাবি দাওয়া নিয়ে বাঘাযতীনে পথে অবস্থান বিক্ষোভে বসে প্রাথমিক শিক্ষক সংগঠনের সদস্যরা।

পরে অবশ্য শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্য়ায়ের সঙ্গে দেখা করেন সংগঠনের তিন সদস্য। প্রায় ৪৫ মিনিট ধরে চলে সমস্যা সমাধানে আলোচনা। কিন্তু বৈঠক শেষে খালি হাতেই ফিরতে হয় সংগঠনের রাজ্য সম্পাদক পৃথা বিশ্বাসকে। পরে তিনি জানান, প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন বৈষম্যের বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী সঙ্গে তাঁদের কথা হয়েছে। রাজ্য সরকারের নতুন বেতন কাঠামোয় সিনিয়র প্রাইমারি টিচারদের সঙ্গে জুনিয়রদের ফারাক থাকছে না। দেখা যাচ্ছে, নতুন হারে বতন বৃদ্ধিতে সিনিয়র ও জুনিয়র টিচার আর্থিক ক্ষেত্রে একই জায়গায় পৌঁছে যাচ্ছেন। গ্রেড পে-র পরিবর্তন হলেও পে ব্যান্ড টু ও পে ব্যান্ড থ্রি-এর কোনও পরিবর্তন হয়নি। এই দুই পে ব্য়ান্ডের ক্ষেত্রে আনুপাতিক হারে বৃদ্ধি হওয়া উচিত ছিল যা করা হয়নি।  

সব শুনে শিক্ষামন্ত্রী জানিয়েছেন, চাইলে বিষয়টি নিয়ে আইনের দ্বারস্থ হতে পারেন তাঁরা। তবে এখনই বিষয়টা নিয়ে কিছু করতে পারবেন না তিনি। তবে অর্থমন্ত্রকের কাছে বিষয়টি তুলে ধরবেন।  যা শুনে অবস্থান না তোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষকরা।  গত বছর থেকে প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন কাঠামোয় পরিবর্তন চেয়ে পেথে নেমেছিলেন প্রাথমিক শিক্ষকরা। সেবার আন্দোলনের পথে হাঁটলে পুলিসের লাঠিচার্জের মুখে পড়তে হয় শিক্ষকদের। যা থেকে অস্বস্তি বাড়ে রাজ্য সরকারের । পরে প্রাথমিক শিক্ষকদের দাবি দাওয়া নিয়ে আলোচনায় বসেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়।  ঠিক হয় পুজোর আগেই প্রাথমিক শিক্ষকদের দাবি মেনে বেতন কাঠামোয় পরিবর্তন আনা হবে। সেই অনুযায়ী গত জুলাই মাসে সার্কুলার  জারি হয়। যাতে প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন কাঠামোয় পরিবর্তন করে রাজ্য সরকার। 

বর্তমানে রাজ্য সরকারের এই বেতন কাঠামো নিয়ে ফের প্রতিবাদে নেমেছে উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারি টিচারস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন। সংঘঠের অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষা দফতরের থেকে যে বেতনা কাঠামোর আশ্বাস দেওয়া হয়েছিল তার বাস্তবায়ন ঘটেনি সার্কুলারে। এর জন্য একপ্রকার প্রতারিত বোধ করছে প্রাথমিক শিক্ষকরা।