শহরে হিমেল হাওয়ার সঙ্গে একরাশ স্টাইলিশ পোশাক নিয়ে এল শুভা মিত্র ও তার বোহ উইন্টার কালেকশন। আর সেখানেই উপস্থিত ছিলেন, অভিনেত্রী সোহিনী সরকার। তিনি মন খুললেন আমাদের সংবাদমাধ্য়মের কাছে। এবং জানালেন তাঁর শীতের পছন্দের পোশাকের কথা , স্কুল জীবনের সেরা মুহূর্ত আর দিলেন তাঁর আগামী ছবির আভাস।  

সোহিনী সরকার জানালেন, শীতকালে ছোটবেলা জুড়েই থাকত নানা উৎসব। আর এই সময়টায় নতুন সবজির সঙ্গে বিভিন্ন রকমের খাবার পাওয়া যেত। তাই সারাবছরেই থাকত, শীতকালের জন্য় একটা অপেক্ষা। পিঠে-পুলি থেকে শুরু করে, কিসমিস দেওয়া কেক সবই যে পাওয়া যায় শীতকালেই। সোহিনী আরও জানালেন, তিনি কেক বানাতে খুব ভালবাসেন। বিশেষ কিসমিস দেওয়া কেক বানিয়ে পরিবারকে খাওয়ানো, তাঁর অন্য়তম পছন্দ। এর পাশাপাশি তিনি বললেন, বরাবর তাঁর স্বপ্ন ছিল বাবার জন্য় নিজের হাতে সোয়েটার বানিয়ে দেওয়া। কিন্তু সে স্বপ্ন আর শেষ অবধি পূরণ হয়না।  নিজেই হেসে জানালেন, কারণ সেই সোয়েটারটা শেষ অবধি ছোট একটা রুমালের মত আকারে তৈরি হয়। স্কুলে পড়াকালীন, এই সময়টাই স্কুল ম্য়াগাজিন বেরোত। আর কার লেখা বেরোবে, সেই নিয়ে একটা উত্তেজনা লেগেই থাকত। শীতকালে ময়দানের বইমেলাও ছিল সোহিনীর কাছে, তাঁর অন্য়তম আকর্ষণ। অনেক বই কিনতে হবে এই ভেবে বাড়ি থেকে বেরনো হত ঠিকই কিন্তু শেষ কী বই কিনলে ভাল হয় সেটা ভাবতেই বেলা গড়াত। 
 
সোহিনী সরকার জানালেন, তিনি শীতকালের জন্য় অপেক্ষা করে থাকেন। কারন সারা বছরের এই সময়টাই খেয়ে সুখ, জামাকাপড় পরে সুখ। গরমে ঘেমে গিয়ে পোশাক পরার থেকে শীতে সব দিক থেকেই আরামদায়ক। ইন্ডিয়ান ড্রেসের সঙ্গে জুতো পরতে খুব পছন্দ করেন। ওয়ান পিস ও গলা বন্ধ টপ তার  পছন্দের ড্রেস। রাতের অনুষ্ঠান থাকলে, লাল-কালোর কম্বিনেশনে শাড়ি ও টপ পড়তে খুব পছন্দ করেন। সুতির কাপড়ের মধ্য়ে জ্য়াকেট পড়তেও বেশ লাগে তার। 

সোহিনী তাঁর আগামি ছবি নিয়ে জিজ্ঞেস করতেই জানালেন, তিনি এবং আবির চ্য়াটার্জী আগুন্তুক বলে একটি ছবিতে কাজ করেছেন। খুব শীঘ্রই ছবিটি মুক্তি পাবে। এছাড়া অনিল চক্রবর্তীর পরিচালনায়, তাঁর একটি ওয়েব সিরিজ ডিসেম্বর মাসেই মুক্তি পাবে।