চিকিৎসকদের কর্মবিরতির পরে এবার এসএসকে- এমএসকে শিক্ষকদের বিক্ষোভও সামাল দিতে সফল হল রাজ্য সরকার। তাঁদের সমস্ত দাবি পুরণ করার আশ্বাস দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। এর জন্য পনেরো দিন সময় চেয়েছেন তিনি। ধরনা মঞ্চে গিয়ে শিক্ষামন্ত্রী একথা ঘোষণার পরেই আন্দোলন তুলে নেন বিক্ষোভকারীরা। 

গত এক সপ্তাহ ধরে সল্টলেকের বিকাশ ভবনের সামনে বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন এসএসকে এবং এসএসকে শিক্ষকরা। গত সোমবার পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙে বিকাশ ভবনেও ঢুকে যান তাঁরা। মুলত বেতন বৃদ্ধি এবং পঞ্চায়েত দফতর থেকে তাঁদেরকে শিক্ষা দফতরের অধীনে নিয়ে আসার জন্যই এই আন্দোলন চলছিল। 

মঙ্গলবার বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে দেখা করতে যান বিরোধী দলনেতা আবদুল মান্নান এবং সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তী। এর পরেই বিক্ষোভকারীদের একটি প্রতিনিধি দলের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। দাবিগুলি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলে সমস্যার সমাধানের জন্য পনেরো দিন সময় চেয়ে নেন তিনি। এর পরে বিক্ষোভকারীদের দাবি মেনে ধরনা মঞ্চে গিয়েও সেই ঘোষণা করেন তিনি। শিক্ষামন্ত্রীর অনুরোধ মেনে নিয়ে আপাতত ধরনা কর্মসূচি প্রত্যাহার  করে নেন বিক্ষোভকারীরা। 

শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, 'আমাদের সরকার একজনও এসএসকে- এমএসকে শিক্ষককে নিয়োগ করেনি। এঁদের সবার নিয়োগই বাম আমলে। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী কারো রুজি- রুটি বন্ধ করার বিপক্ষে। তাই মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে এঁদের দাবিগুলি নিয়ে আলোচনা করে সমাধান সূত্র বের করার জন্য আমি পনেরো দিন সময় চেয়েছি।'

বিক্ষোভকারী এসএসকে এবং এমএসকে শিক্ষকরাও জানিয়েছেন, শিক্ষামন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি পেয়েই তাঁরা আন্দোলন প্রত্যাহার করেছেন। দাবি পূরণ না হলে ফের তাঁরা আন্দোলন শুরু করবেন।