ভরাডুবি বললেও কম বলা হবে। ৪২ জন প্রার্থীর ৪১ জনের জামানত বাজেয়াপ্ত।  মাত্র৭  শতাংশ ভোট পেয়েছে গোটা দল। এমন অবস্থায় ৪ তারিখ রাজ্য কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হতে চলেছে সিপিএমের।

ভোট পরবর্তী পর্যায়ে রাজ্য কমিটির এই বৈঠকে সিপিএমের ভবিষ্যতে পক্ষে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছে  রাজনীতি বিশ্লেষকরা। তার কারণ এই প্রথম জেলার নেতারা সুযোগ পাবেন রাজ্যে কমিটির মাথাদের সরাসরি প্রশ্ন করার। 

লোকসভা ভোটে ভরাডুবি হয়েছে বামেদের। অনেকেরই মন্তব্য বামেদের ভোট রামের ঘরে গেছে। নিছক মন্তব্যই নয় তথ্য এমন কথা বলছে প্রতিটি বুথে গড়েন অসুখী ভোটের মধ্যে ৬৩ টি ভোট পেয়েছে বামেরা।  হাওয়াবদলের এত বড় ইঙ্গিত কেন শীর্ষ নেতারা আগে থেকে পাননি এই কথাই জেলার নেতারা রাজ্য কমিটির  মাথাদের কাছে জিজ্ঞেস করতে পারে। একই সঙ্গে এই ব্যর্থতা তথা অদূরদর্শিতার অভাবে র জন্যে দাবি উঠতে পারে এই কমিটির আমূল সংস্কারেরও।

সূত্রের খবর, জেলার নেতাদের সামনে মুখে কুলুপ আটতে চাইছেন রাজ্যের নেতারা।  অনেকটা সমীক্ষাপত্রের ধাঁচে তাদের হাতে মূল্যায়ণপত্র ধরিয়ে দিতে পাআরে রাজ্য নেতারা।

 প্রসঙ্গত মঙ্গলবার রাজ্য কমিটির বৈঠক, কিন্তু একই সপ্তাহে কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক থাকায় সম্ভবত বৈঠকে পৌঁছতে পারবেন না দলের সর্বভারতীয় সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি।