করোনা আবহে এমনিতেই যাত্রী কম। উল্টে স্বাস্থ্য় বিধি মানতে গিয়ে লোক তুলতেও রয়েছে বিধিনিষেধ।  সংসার চালাতে তাই রাজ্য় সরকারের কাছে বাসভাড়া বাড়ানোর অনুরোধ  করেছিলেন বেসরকারি  বাস মালিক সংগঠনগুলি। কিন্তু রাজ্য়ের সঙ্গে এ বিষয়ে বার বার বৈঠকেও কাজ হয়নি। শেষে বাস মালিকদের কিছুটা সুরাহা করতে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বেসরকারি বাস-মিনিবাসের কর মুকুব করল রাজ্য়।

বিজেপি ছেড়ে 'ঘরে ফিরছেন' তৃণমূলের একাধিক নেতা, কী বলছেন দিলীপ

রাজ্য় জানিয়ে  দিয়েছে করোনা আবহে এমনিতেই পকেটে টান পড়েছে মানুষের।সেখানে  দাঁড়িয়ে বাসভাড়া বাড়ানো যাবে না। তবে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কর মুকুবের পথে হেঁটেছে রাজ্য। বৃহস্পতিবার নবান্নে মুখ্যমন্ত্রীর উপস্থিতিতে এই কথা বলেন স্বরাষ্ট্র সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়।  তিনি জানান, আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাস, মিনিবাসের কর মকুব কারা হল। মোটর ভেহিক্যাল অ্যাডিশনাল করও মকুব করা হল। পারমিট ফিও মকুবের সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য় সরকার।    

বাংলার লকডাউনে 'পাকিস্তান যোগ', মমতাকে নিয়ে কী বললেন অর্জুন.

রাজ্য়ের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি বলছে, কদিন  আগেই ডিজেলের  মূল্যবৃদ্ধি, বাস ভাড়া বাড়ানো ছাড়াও একাধিক দাবি  নিয়ে রাজ্য়পালের সঙ্গে দেখা করে রাজ্য়ের বাস সিন্ডিকেটগুলি। তাদের বক্তব্য় করোনা পরিস্থতিতে ব্যাপক ক্ষতির মুখে পরিবহণ শিল্প। মুখ্যমন্ত্রীর  কাছে বার বরা বলা সত্ত্বেও কোনও কাজ হচ্ছে না।  অবশেষে দেখা গেল কর মুকুবের মাধ্য়মে বেসরকারি বাস মালিকদের কিছু সমস্য়া লাঘব করার চেষ্টা করল রাজ্য়।