প্রাপ্য দাবি আদায়ের জন্য এর আগে বহুবার পথে নেমেছেন শিক্ষকরা। অনেকক্ষেত্রে অনশনের পথ বেছে নিয়েছেন বহু শিক্ষক। তাই ৫ সেপ্টেম্বরে শিক্ষক দিবসের দিনে তাঁদের দাবিদাওয়া জানাতেই রাস্তায়ে নামতে চলেছেন শিক্ষক শিক্ষিকারা। 

শিক্ষকদের একটা বড় ক্ষোভের জায়গা হল তাঁদের সঙ্গে সারা বছরই কেবল নিগ্রহের ঘটনা ঘটবে আর শিক্ষক দিবসের দিন এলেই তাঁদের শ্রদ্ধা জানানো হবে, এমনটা বেশিদিন চলতে পারে না। আর সেই কারণেই প্রতিবাদ জানানোর জন্য তাঁরা বেছে নিয়েছেন শিক্ষক দিবসের দিনটি। সাম্প্রতিককালে,  শিক্ষক আন্দোলনের উপর পুলিশী নির্যাতন ,হামলা ও মিথ্যা মামলায় গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে এবং শিক্ষাক্ষেত্রে নৈরাজ্য,শিক্ষাঙ্গনে শিক্ষক আক্রান্ত ও শিক্ষক নিয়োগে দূর্ণীতির প্রতিবাদে দুপুর ১২ টা থেকে মহা ধিক্কার মিছিলে সামিল হবেন শিক্ষকরা।

শিক্ষকের হাতেই হেনস্থা, কোচের বিরুদ্ধে যৌন নিগ্রহের অভিযোগ জাতীয় সাঁতারুর

মিছিলটি  শিয়ালদহ থেকে ধর্মতলার দিকে যাবে৷ রানী রাসমনি রোডে প্রায় ২০ হাজারের বেশি শিক্ষক-শিক্ষিকারা উপস্থিত থাকবেন এই ধিক্কার মিছিলে উপস্থিত থাকবেন বলে জানা গিয়েছে। শতকরা আশি শতাংশ শিক্ষকই যোগ দেবেন এই ধিক্কার মিছিলে। সমবেত হয়ে তাঁরা পালন করবেন 'লজ্জা দিবস'৷ এই মিছিলে উপস্থিত থাকবেন সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন বিচারপতি অশোক কুমার গঙ্গোপাধ্যায়, আইনজীবি বিকাশরঞ্জন ভট্টাচর্য, বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নান, সুজন চক্তবর্তী , রণজিত শুর-সহ আরও বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ। 

পাশাপাশি আজ শিক্ষক দিবসে রাজ্য সরকারের তরফে বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে। সেখানেও প্রায় দশ হাজার শিক্ষকের উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে। যদিও এবার কোনও ছাত্র থাকবে না বলেই খবর। তবে বেশ কিছু শিক্ষক সংগঠনের তরফে অভিযোগ উঠছে য়ে, কেবল সরকারের অনুগামী শিক্ষক সংগঠনগুলোকেই এই অননুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।