অ্যাপেলো হাসপাতালে চার মাসের শিশুকন্যা কুহেলি চক্রবর্তীর মৃত্যুর ঘটনায় তিন চিকিৎসকের লাইসেন্স তিন মাসের জন্য বাতিল করল রাজ্য মেডিক্যাল কাউন্সিল। যদিও, মেডিক্যাল কাউন্সিলের এই সিদ্ধান্তে খুশি নয় মৃত শিশুর পরিবার। সুবিচার চেয়ে এবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দ্বারস্থ হতে চান তাঁরা। 

২০১৭ সালের ১৯ এপ্রিল কলকাতার অ্যাপেলো হাসপাতালে মৃত্যু হয় বেহালার ঠাকুরপুকুরের বাসিন্দা অভিজিৎ চক্রবর্তী ও শালু চক্রবর্তীর চার মাসের কন্যাসন্তান কুহেলি চক্রবর্তীর। ওই শিশুকন্যাকে কোলোনস্কপি করানোর জন্য হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছিল। শিশুটির পরিবারের অভিযোগ, চিকিৎসকদের গাফিলতিতেই মৃত্যু হয়েছিল শিশুটির। অভিযোগ, হাসপাতালে ভর্তি করানোর পরে খালি পেটে রাখা হয়েছিল শিশুটিকে। সেই কারণে তার কোলনোস্কপি করা হয়নি। এর পরের দিন রাইলস টিউবের মাধ্যমে নাক দিয়ে শিশুটিকে খাওয়ানোর চেষ্টা করতে গিয়েই শিশুটির মৃত্যু হয়। 

দীর্ঘদিন শুনানি চলার পর শুক্রবারই চিঠি দিয়ে তিন চিকিৎসকের শাস্তির কথা কুহেলির পরিবারকে জানিয়েছে রাজ্য মেডিক্যাল কাউন্সিল। তাতে বলা হয়েছে, বৈশালী শ্রীবাস্তব, সুভাষচন্দ্র তিওয়ারি এবং সঞ্জয় মহাওয়ালকে তিন মাসের জন্য সাসপেন্ড করা হয়েছে। এই সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ কুহেলির মা শালু চক্রবর্তী বলেন, 'আমরা আরও কড়া শাস্তি আশা করেছিলাম। কিন্তু এখন মনে হচ্ছে ওই চিকিৎসকদের তিন মাসের হলিডে প্যাকেজে পাঠানো হল। আরও এক চিকিৎসক মহেশকুমার গোয়েঙ্কার বিরুদ্ধেও আমরা অভিযোগ জানিয়েছিলাম। কিন্তু তাঁকেও ছাড় দেওয়া হয়েছে। আমরা এই শাস্তিতে খুশি নই। এর বিরুদ্ধে আমরা এবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দ্বারস্থ হব। উনি তো আমাদের বলেছিলেন কোনও সমস্যা হলে ওনাকে জানাতে।'