আজকাল অনেকেই ইউরিক অ্যাসিডের সমস্যায় ভোগেন। দেখাযায় প্রায় সব ঘরেই অন্তত একজনের এই সমস্যা আছেন। নানা কারণেই  এই সমস্যা হয়ে থাকে। ওজন বেশি হওয়ার কারণেও এই সমস্যা হয়ে থাকে। এছাড়াও ডায়াবেটিস, অত্যাধিক অ্যালকোহল পান এছাড়াও নানা কারণে এই সমস্যা হয়ে থাকে। তবে এই সমস্যার সমাধানের উপায় আছে। বেশ কিছু খাবার যা ইউরিক অ্যাসিড আয়ত্ত্বের রাখতে সাহায্য করে। থাকলো তারই একটা তালিকা

গ্রিন টি

গ্রিন টি -তে উচ্চ ক্যাটচিন রয়েছে যা একটি শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। অনেকের মতে ক্যাটচিন শরীরের নির্দিষ্ট ধরণের এনজাইমগুলির উত্পাদন কমিয়ে আনে। যা শরীরে ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। যার ফলে প্রতিদিন গ্রিন টি সেবনে আয়ত্বের মধ্যে রাখা যায় ইউরিক অ্যাসিডের প্রভাব। 


ভিটামিন- সি

যে সমস্ত ফলে ভিটামিন- সি আছে সেই জাতীয় ফল খেলে ইউরিক অ্যাসিড আয়ত্ত্বের মধ্যে রাখা সম্ভব। প্রতিদিন অন্তত ৫০০ মিলিগ্রাম ভিটামিন- সি জাতীয় খাবার খেলে তা দেহে ভিটামিন- সি -এর মাত্রা স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে। কমলা লেবু বা লেবুর রস -এ প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন- সি থাকে। সেই কারণে এই সমস্ত খাবার খেলে ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা সঠিক থাকে। 

ডার্ক চকোলেট

ডার্ক চকোলেটে প্রচুর পরিমাণে থিওব্রোমাইন থাকে, যা ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা হ্রাস করতে সাহায্য করে। তাই ডার্ক চকোলেট খেলে ইউরিক আস্যিড থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। তবে তা অবশ্যই হতে হবে ডার্ক চকলেট অন্য  চকোলেটে এই গুণাগুণ কিন্তু নেই।

সবজি

সবজিতে থাকে অনেক গুণাগুণ। ফলে সবজিও ইউরিক অ্যাসিড কমাতে সাহায্য করে। পুষ্টিকর সবজি ইউরিক অ্যাসিড কমাতে সাহায্য করলেও, এমন অনেক সবজি আছে যা ইউরিক অ্যাসিড বাড়িয়ে দেয়। সেই সব সবজির মধ্যে আছে পেয়াজকলি, মটর, ফুলকপি, টমেটো। ফলে এই সব সবজি থেকে দূরে থাকারই চেষ্টা করুন।  

ফাইবার

চেষ্টা করুন ফাইবার জাতীয় খাবার খেতে। ফাইবার জাতীয় খাবারের অনেক গুণ। তাই খাবারের লিস্টে ফাইবার রাখার চেষ্টা অবশ্যই করুন। 

ইউরিক অ্যাসিডের স্তর কমিয়ে আনার জন্য ওটস, গোটা শস্য, শাকসব্জির মধ্যে ব্রোকলি, কুমড়ো এবং সেলারি অন্তর্ভুক্ত করুন। এই জাতীয় খাবারগুলিতে ডায়েটরি ফাইবারে পরিপূর্ণ থাকে। যা ইউরিক অ্যাসিড শোষণ করে শরীর থেকে নির্মূল করতে সাহায্য করে।