ড্রাগন নামটা শুনলেই যেন ড্রাগনের কথা মনে পড়ে। কিন্তু এ ড্রাগন সেই ড্রাগন নয়। এটি একটি বিদেশি ফল। যার নাম ড্রাগন ফল। কিন্তু এখন যে কোন শপিং মলেই এই ফল পাওয়া যায়। শীতকালীন ফল গাজর, কমালেবুর থেকেও এর উপকারিতা বেশি। ড্রাগনের মধ্যে রয়েছে অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা। 

আরও পড়ুন-ডায়েট নয়, প্রোটিনের ঘাটতি পূরণে পাতে রাখুন ডিমের কুসুম...

ডায়াবেটিস প্রতিরোধে
বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ক্যান্সার থেকে ডায়াবেটিস প্রতিরোধে খুবই কার্যকরী এই ফল। গর্ভবতী মায়েরাও খেতে পারেন সুস্বাদু এই ড্রাগন ফল। 

বয়সের ছাপ দূর করতে
বয়সের ছাপ দূর করতে ত্বককে দৃঢ় রাখতে প্রচুর অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের দরকার হয়। ভিটামিন -সি এর উপস্থিতির কারণে ড্রাগন ফলকে অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের উৎস বলা হয়। 

ক্যান্সার প্রতিরোধে
ড্রাগন ফল ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করে। এই ফলে ক্যারোটিন নামক উপাদান রয়েছে, যা শরীরে থাকা টিউমারকে ধ্বংস করে।

হজমে সহায়ক
প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় ড্রাগন ফল রাখুন। ড্রাগন ফলে আঁশের পরিমাণ অনেক বেশি থাকে, যার ফলে পরিপাক প্রক্রিয়া ঠিক ভাবে কাজ করে। যা বদহজমেও কার্যকরী। 

আরও পড়ুন-সাধ্যের মধ্যে সাধ পূরণ, বড়দিনে প্রিয়জনকে দিন সেরা উপহার...

হার্ট ভাল রাখে
খারাপ কোলেস্টেরল কমানোর মাধ্যমে হৃদযন্ত্র ভাল রাখে এই ফল। ড্রাগন ফল খেলে উচ্চ রক্তচাপ ও হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমে।

ডায়াবেটিস প্রতিরোধে
বেশি পরিমাণ আঁশ থাকায় ড্রাগন খেলে রক্তে শর্করার পরিমাণ স্থিতিশীল থাকে। খাদ্য তালিকায় ড্রাগন থাকলে ডায়াবেটিসের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

রোগ প্রতিরোধে
রোগ প্রতিরোধের সমস্ত ক্ষমতাই রয়েছে এই ড্রাগন ফলে। বিশেষত প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে এই ড্রাগন ফলে। এই ফলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ঠিক থাকে। নিয়মিত এই ফলটি খেলে আপনার শরীর স্বাস্থ্য ভাল থাকবে।