দরজায় কড়া নাড়ছে দুর্গাপুজো। হাতে গোনা মাত্র কয়েকটা দিন বাকি। পুজোর আগে থেকেই শুরু হয়ে যায় পুজোর দিনগুলোতে কিভাবে সাজবো, কি পড়বো সব কিছুর পরিকল্পনা। পুজোর সাজ-গোজের সঙ্গে একঢাল সুন্দর চুল কে না চায়! সুন্দর সাজ-গোজের সঙ্গে চুল যদি ঠিক না থাকলে চলে, তাই হাতে গোনা এই কয়েকদিনে মেনে চলুন ঘরোয়া কিছু পদ্ধতি। যার দ্বারা আপনি পেতে পারেন সুন্দর মোলায়েম চুল। 

শ্যাম্পু-
সঠিক শ্যাম্পু বাছুন। আপনার চুলের জন্য উপযুক্ত শ্যাম্পু ব্যবহার করুন, আপনার চুলের ধরণ অনুযায়ী সঠিক শ্যাম্পু না বাছলে চুলের উপকার হবে না। উল্টে ক্ষতি হতে পারে। যেমন খুশকির সমস্যা থাকলে ব্যবহার করুন অ্যান্টি ড্যানড্রাফ শ্যাম্পু। চুলে রং করা থাকলে ব্যবহার করুন কালার গার্ড যুক্ত শ্যাম্পু। এছাড়া চেষ্টা করবেন কিছু প্রাকৃতিক উপাদান যুক্ত শ্যাম্পু ব্যবহার করার। রোজকার বাইরে বেড়োনোর ফলে আমাদের স্ক্যাল্পে ধুলো, ময়লা জমতে থাকে। সেগুলো পরিষ্কার করা খুব জরুরি। তাই খুব বেশি দিন অন্তর শ্যাম্পু করা উচিত নয়। 

আরও পড়ুন পুজোর আগেই হয়ে উঠুন আকর্ষনীয়, এখন থেকেই মেনে চলুন এগুলি

কন্ডিশনার-
শ্যাম্পুর পর চুলের কন্ডিশনিং করা অত্যন্ত জরুরি। চুলে শ্যাম্পুর পর  কন্ডিশনার না দিলে চুল রুক্ষ ও ফ্রিজি হয়ে যেতে পারে। চুল মোলায়েম রাখতে সাহায্য করে কন্ডিশনার। তবে মাথায় রাখবেন স্ক্যাল্পে যেন কন্ডিশনার না লাগে। স্ক্যাল্পে কন্ডিশনার লাগলে চুলের গোড়া আলগা হয়ে যেতে পারে। 

তেল-
শুধুমাত্র শ্যাম্পু বা কন্ডিশনার না, তার পাশাপাশি দরকার চুলে তেল দেওয়া। তেল চুলের পুষ্টি যোগায়। ভালো ফল পাওয়ার জন্য একটা বাটিতে নারকেল তেল নিয়ে সেটা হালকা গরম করে নিয়ে লাগাতে পারেন। সপ্তাহে দুবার না পারলেও একবার অন্তত তেল মালিশ করুন, চেষ্টা করবেন স্ক্যাল্পে ভালো করে তেল দেওয়ার, কারণ চুলের লম্বা অংশে তেল লাগিয়ে সেরকম বিশেষ উপকার পাবেন না। চুলে তেল লাগিয়ে বাইরে বেরোবেন না, খুব তাড়াতাড়ি ধুলোময়লা টেনে নেয়। আর তেল লাগানোর পর চুল আঁচড়াতে চাইলে মোটা দাঁড়ার চিরুনি ব্যবহার করুন। এছাড়া তেল লাগিয়ে খুব টাইট করে চুল বাঁধবেন না।

এছাড়া যে জিনিসগুলি মাথায় রাখা দরকার তা হল খাওয়া-দাওয়া। সবুজ জিনিস বেশী করে খাওয়া উচিত। শাক, সবজি, ফলমূল, সবচেয়ে প্রয়োজনীয় জিনিস হল প্রচুর পরিমাণে জল খেতে হবে। চুল আঁচড়ানোর হলে কাঠের চিরুনি ব্যবহার করতে পারলে সবচেয়ে ভালো।