গরমের দিনে আমের পাশাপাশি কাঁঠালও খেতে পছন্দ করেন অনেকে। কিন্তু জানেন কী ফলের থেকেও কাঁঠালের বীজে রয়েছে এমন কিছু পুষ্টিকর উপাদান যা শরীররের পক্ষে উপকারি তো বটেই সেইসঙ্গে শরীরের একাধিক সমস্যা দূর করতে সাহায্য় করে। প্রতিদিন কয়েকটি কাঁঠাল বীজ সেদ্ধ করে নিয়ে তা ভাতের সঙ্গেই মেখে খান। উপকার পাবেন। 

১) শরীরে প্রোটিনের ঘাটতি পূরণ করে- যাঁরা নিরামিষ খান তাঁদের পক্ষে মাছ-মাংস থেকে প্রোটিন পাওয়া সম্ভব হয়ে ওঠে না। তাঁদের জন্য কাঁঠালের বীজ খুবই উপকারি। কারণ এতে থাকা প্রোটিন শরীরে প্রোটিনের ঘাটতি পূরণ করতে সাহায্য করে। 

২) হজম ক্ষমতার উন্নতি ঘটায়-  কাঁঠালের বীজ রোদে শুকিয়ে গুঁড়ো করে নিলে সেটি নিয়মিত খেলে শরীরে গ্যাস-অম্বল এবং বদহজমের মতো সমস্যাগুলি থেকে চিরতরে পাবেন মুক্তি। এর পাশাপাশি এতে থাকা ফাইবার কোষ্ঠকাঠিন্য কমাতে বিশেষ ভুমিকা পালন করে।

৩) দৃষ্টিশক্তি প্রখর করে- কাঁঠালের বীজে রয়েছে ভিটামিন এ, যা দৃষ্টিশক্তি প্রখর করার পাশাপাশি চোখ সম্পর্কিত যাবতীয় সমস্যাকে দূরে রাখে।তাই চোখের যত্ন নিতে খাদ্যতালিকায় অবশ্যই রাখুন কাঁঠাল বীজ। 

৪) রক্তাল্পতা নিরাময়ে সাহায্য করে- কাঁঠালের বীজে থাকে প্রচুর পরিমাণে লৌহ  যা খুব  রক্তাল্পতা বা অ্যানিমিয়ার মতো সমস্যা দূর করতে দারুণ কাজ দেয়। বিশেষত মহিলারা একটা বয়সের পর রক্তাল্পতার সমস্যায় ভুগতে থাকেন, তাই মহিলাদের উচিত নিয়মিত কাঁঠাল বীজ খাওয়া। 

৫) সংক্রমণ রোধ করে- বর্ষাকালে বিভিন্ন সংক্রমণের প্রকোপ বাড়ে। অনেকেই হয়তো জানেন না যে এই কাঁঠাল বীজে রয়েছে সংক্রমণ রোধকারী ফর্মুলা যা শরীরে হওয়া সংক্রমণ রোধ করতে সাহায্য করে। 

৬) মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে- অত্যধিক কাজের চাপে মানসিক চাপ বৃদ্ধি পাওয়া খুবই স্বাভাবিক। আর এই মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে কাঁঠালের বীজ বিশেষ উপকারি। কারণ এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন এবং মাইক্রোনিউট্রিয়েন্টস, যা মস্তিষ্কের কেমিকেলের ভারসাম্য বজায় রেখে শরীর মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।