Asianet News Bangla

নতুন হন্ডা অ্যাকটিভা ৬জি নিজের সুনাম রাখতে বদ্ধপরিকর

  • নতুন হন্ডা অ্যাকটিভা ৬জি জোর দিয়েছে আরামের ওপর
  • শহরে পথে এই স্কুটার চালিয়ে খুশি হবেন চালক
  • আগের থেকে অনেক বেশি বড়ো ও হালকা এই স্কুটার
  • নতুন অ্যাকটিভায় টেলিস্কোপিক ফ্রন্ট সাস্পেনসন নতুন সংযোজন
Honda Activa 6G has got a new look and dimensions
Author
Kolkata, First Published Feb 29, 2020, 12:23 AM IST
  • Facebook
  • Twitter
  • Whatsapp

হন্ডা সেইসময়ে লঞ্চ করেছিল অ্যাকটিভা যখন ভারতীয় বাজারে স্কুটার নিয়ে সবাই আশা, ভরসা হারিয়ে ফেলেছিল। সেইসময় থেকেই অ্যাকটিভা দেশের সবচেয়ে বেশি বিক্রি হওয়া স্কুটারগুলির মধ্যে অন্যতম। অ্যাকটিভা এখন নতুন প্রজন্মের জন্য নতুন রূপে ধরা দিয়েছে অ্যাকটিভা ৬জি নামে।  অ্যাকটিভা ১২৫ স্কুটারের সেই একই চেসিসের ওপর ভিত্তি করেই এই মডেল তৈরি হয়েছে।
নতুন অ্যাকটিভা আগের থেকে অনেকটাই বড়ো ও দৈর্ঘ্যে লম্বা।  হুইলবেসও যথেষ্ট বড়ো এখন। নতুন মডেলটিতে ফ্লোরবোর্ড স্পেসও অনেকখানি বড়ো। আর এই নতুন গড়নে আরামের দিকে যথেষ্ট জোর দেওয়া হয়েছে।  চালকের সুবিধের কথা মাথায় রেখে সিটের উচ্চতা যথাযথ করা হয়েছে।  নতুন অ্যাকটিভা ৬জি -এর  আকর্ষণীয় চেহারা সবার নজর কাড়বে অবশ্যই। ডিলাক্স মডেলটির এলইডি হেডলাইট বাড়িয়ে দিয়েছে স্কুটারটির আকর্ষণ। এছাড়াও অ্যাকটিভায় টেলিস্কোপিক ফ্রন্ট সাস্পেনসন নতুন সংযোজন, তাছাড়াও এই মডেলে ব্যবহৃত হয়েছে ১২ ইন ফ্রন্ট হুইল। অ্যাকটিভা ৬জি -এর ইন্সট্রুমেন্ট প্যানেল সেই একইরকম পুরনো আছে।  অ্যানালগ ইউনিটে স্পিডো, ওডো এবং ফুয়েল গজ একইরকমের। সুইচগিয়ার  একবারে নতুন, মানও উন্নত। কম্বিনেশন সুইচের মাধ্যমে কেবল চাবি নয়,  বাইরের ফুয়েল ফিলার ও সিট অবধি পৌঁছনো যাচ্ছে।  সিটের নীচের স্টোরেজ একইরকম অপরিবর্তিত আছে।
বিএস ৬ নিয়ম লাগু হওয়ার পরে এই ধরণের ছোটো ইঞ্জিনগুলোয় অনেক রকমের প্রযুক্তিগত পরিবর্তন এসেছে। অনেক রকমের প্রযুক্তির অন্তর্ভুক্তি ঘটেছে। পুরনো ১১০সিসি ইঞ্জিনে যোগ হয়েছে নতুন নতুন জিনিস- এইচইটি, ইএসপি এবং ফুয়েল ইঞ্জেকশন ইত্যাদি।  তবে নতুন অ্যাকটিভা আগের থেকে হালকা। নতুন অ্যাকটিভা উৎপন্ন করে ৭.৬৮ বিএইচপি এবং ৮.৭৯ এনএম টর্ক। 
স্টার্ট করার পর পর অ্যাকটিভা ৬জি আগের ভার্সানের থেকে কিছুটা ভাইবি হলেও কবজির মোচড়ে শীঘ্রই নিয়ন্ত্রিত হয়ে যায়। ভাইব কমে যায় আর স্বস্তিদায়ক স্থিতি ফিরে আসে মুহূর্তেই। ঘন্টায় ৬০ কিমি অবধি অ্যাকসেলেটর বেশ দ্রুততার সঙ্গে চলে কিন্তু ৬০ কিমি পেরিয়ে গেলেই গতি  কিছুটা কমে যায়। ৯০ কিমি স্পিডের পরে স্পিডো সতর্ক করে চালককে। শহরের মধ্যে এই স্কুটার চালিয়ে চালক যথেষ্ট খুশি হবেন। এই স্কুটারে চড়া ও একে নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষেত্রে বিশাল উন্নতি সাধন করেছে অ্যাকটিভা। নতুন সাস্পেনসন সেটআপ নিয়ন্ত্রণে অনেকখানি উন্নতি ঘটেছে এবং তার ফলে রাস্তার কোণ, গলিগুলোতে আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে চালানো যাবে। দ্রুততাও এখন উচ্চমানের। কেবল একটা জিনিস নিয়েই অভিযোগ আছে- ব্রেকিং। ডিস্ক না থাকার জন্য অ্যাকটিভা থামতে একটু সময় নেয়। এবং জায়গাও একটু বেশি নেয় থামার সময়।

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios