শীতকাল মানেই কমলালেবু। এই ফলের কোয়া থেকে খোসা সবেতেই পুষ্টিগুণে ঠাসা। কমলায় রয়েছে প্রচুর পরিমানে বিটা ক্যারোটিন ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট উপাদান। এর রসে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি ও ক্যালসিয়াম এবং এর পাতলা ত্বকে রয়েছে আঁশ। এই কারনেই কমলালেবুকে ফাইবার জাতীয় খাদ্যের তালিকায় প্রথম সারিতে রাখা হয়েছে। পুষ্টিবিদদের মতে, ওজন কমানো থেকে ত্বকের পুষ্টি এমন কি হৃদযন্ত্র ভালো রেখে শরীরে রক্ত চলাচল নিয়মিত রাখতে সাহায্য করে কমলা।

আরও পড়ুন- মুখের দাগ ঢাকতে নয়, কনসিলার ব্যবহার করতে পারেন এই কাজেও

প্রতিদিনে একটা করে কমলা লেবু খেতে দৈনিক ভিটামিন সি এর ঘাটতি পূরণ হয়। এছাড়াও কমলা লেবুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট জাতীয় উপাদান। যা শরীরের রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। এছাড়া ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণে রাখতেও সাহায্য করে এই ফল। এতে রয়েছে বিটা ক্যারটিন যা সেল ড্যামেজ প্রতিরোধে সাহায্য করে। বিশেষজ্ঞদের মতে কমলালেবু ক্য়ালসিয়াম ও হাঁড় গঠনেও সাহায্য করে। পাশাপাশি হজম শক্তি বাড়িয়ে তোলে, সর্দি-কাশির সমস্যা দূর করে, কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধে এবং রক্তশূণ্যতা কমাতেও সাহায্য করে।

আরও পড়ুন- শীতকালীন কিছু সমস্যা ও তার সহজ সমাধান

জানলে অবাক হবেন, এই লেবুতে রয়েছে ফ্ল্যাভনয়েড অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সহ অন্যান্য অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যৌগ যা ক্যান্সার প্রতিরোধেও সাহায্য় করে। তাই বিশেষজ্ঞরা বলেন ক্যান্সার প্রতিরোধের জন্য প্রতিদিনের ডায়েটে অন্তত একটা করে কমলালেবু রাখতে। ক্যান্সার ছাড়াও দৃষ্টি শক্তি বৃদ্ধিতেও সাহায্য করে কমলা। কারন এই লেবুতে ভিটামিন সি এর পাশাপাশি রয়েছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন এ। এই ভিটামিন চোখের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কমলার রয়েছে প্রচুর পরিমানে এই ভিটামিন। এছাড়া স্বাস্থ্যের পাশাপাশি ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতেও সাহায্য করে কমলা। এই লেবুতে থাকা উপাদান ত্বককে সজীব রাখতে সাহায্য করে। প্রতিদিনর ডায়েটে একটি করে এই লেবু রাখলে স্বাস্থ্য়ের পাশাপাশি ত্বকের বলিরেখাও দূর হবে এবং ত্বক মসৃণ থাকবে।