করোনা ভাইরাসের কারণে মাস্ক আমাদের জীবনে পোশাকের মতই এক গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে উঠেছে। বিশেষত ঘরের বাইরে পা রাখলেই মাস্ক থাকা অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। তাই বর্তমানে বেশিরভাগ মানুষই মাস্কের গুরুত্ব বুঝে এর ব্যবহার শুরু করেছেন। করোনা ভাইরাসের কারণে দিনের বেশিরভাগ সময়ই এখন মাস্ক ব্যবহার করতে হচ্ছে। এরপর অফিস বা প্রতিদিনের বাইরে যাতায়াতের সময়ও এর ব্যবহারের পরিমান আরও বৃদ্ধি পাবে।

তবে জানেন কি বেশি সময় ধরে মাস্ক ব্যবহারের ফলে ত্বকে নানান সমস্যাও দেখা দিচ্ছে। যেহেতু মাস্কের প্রকারভেদ রয়েছে, ফলে কোনও কোনও মাস্ক খোলার পর মুখে কালো দাগ বসে যাচ্ছে। ত্বকে জ্বালা বা মাস্ক পরে বেশি দ্রুত চলাফেরার ফলে উপকারের বদলে ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। ধীরে ধীরে শিথিল হচ্ছে লকডাউন। এরপর পালা বাইরে বেড়নোর। তবে  করোনা ভাইরাস এড়াতে মাস্ক পরা খুবই জরুরি। একটানা মাস্ক ব্যবহারের ফলে সমস্যা হতে পারে ত্বকে। তাই এই উপায়গুলি জেনে নিয়ে দূর করুন যাবতীয় সমস্যা 

একটানা মাস্ক পরে থাকার ফলে ত্বকে চুলকানি, র‌্যাশ এবং দাগের মতো অনেক সমস্যা দেখা দিচ্ছে। এই সমস্তগুলির হাত থেকে রক্ষা পেতে প্রচুর পরিমানে জল পান করুন। এর ফলে ত্বক হাইড্রেট থাকবে ফলে ত্বকের সমস্যাও কম দেখা দেবে। এরসঙ্গে প্রতিদিন নিয়ম করে জলে তুলসী পাতা দিয়ে ফুটিয়ে এটি ঠান্ডা করে পান করুন। এটি ত্বক হাইড্রেট করে না বরং আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়াতেও সাহায্য করবে। বিশেষজ্ঞদের মতে, মাস্ক পরার ফলে যে সমস্যাগুলি দেখা দিচ্ছে তা নির্দিষ্টি পরিমানে জল পান করলে সহজেই দূর হবে। 

এছাড়া মাস্ক পরার অন্তত ২০ মিনিট আগে ফেস ক্রিম অবশ্যই ব্যবহার করুন। চাইলে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল ক্রিমও ব্যবহার করতে পারেন। এই ক্রিম ব্যবহার করলে মুখে জ্বালা এবং ফুসকুড়ি কমবে। মাস্ক খোলার পরে আপনার হাত অবশ্যই সাবান অথবা স্যানিটাইজার দিয়ে পরিষ্কার করে নিন। অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল ফেস ওয়াশ দিয়ে আপনার মুখ ধুয়ে ফেলুন। ত্বকের যত্ন নিতে অ্যালোভেরা জেল লাগিয়ে নিন। এর ফলে ত্বকের দাগগুলি হালকা হতে শুরু করবে। যাদের ঘাম হয়, তাঁদের মাস্ক ব্যবহার করার আগে মুখ ভালো করে পরিষ্কার করে তবেই মাস্ক পরুন। ঘামযুক্ত ত্বকে মাস্ক পরলে ত্বকের সমস্যা আরও বেশি হতে পারে। এর পাশাপাশি অয়েল ফ্রি ক্রিম ব্যবহার করুন। অয়েল ফ্রি ক্রিম ব্যবহার করলে ঘাম কম হবে।