নিজেকে সুন্দর করে সাজাতে কে  না চায়। কখনও সুন্দর পোশাকে, কখনও প্রসাধনীতে, আবাপ কখনও অ্য়াকসেসরিজ দিয়ে। আর এই অ্য়াকসেসরিজের মধ্য়ে অন্য়তম হলো একটা সুন্দর ব্য়াগ ও জুতো। আপনি সাজতে পছন্দ করেন বা না করেন এর থেকে জুতো ও ব্যাগের প্রয়োজনীয়তা অস্বীকার করতে পারবেন না। বরং সাজ অল্প হলেও একটি সুন্দর জুতো পরলে ও ব্য়াগ নিলেই আপনার সাজ ও ব্য়ক্তিত্ব দুটোই পরিপূর্ণ হয়ে উঠতে পারে। আজকাল বাজারে বিভিন্ন ফ্য়াবরিকের ব্য়াগ ও জুতো পাওয়া যায়। কিন্তু সেগুলি যতোই বাহারি হোক, লেদারের ব্য়াগ বা জুতোকে টেক্কা দিতে পারেনি। 

দাম যতই বেশি হোক, লেদারের জুতো বা ব্য়াগ যে ব্য়ক্তিত্বে বিশেষ ছাপ ফেলে, তা বলাই বাহুল্য। শুধু ব্য়াগ বা জুতো নয়, লেদারের যে কোনও জিনিস যেমন বেল্ট, ঘড়ির বেল্ট, ওয়ালেট সবই বিশেষ নজর কাড়ে। কিন্তু জিনিস যত শৌখিন, তার যত্ন তত বেশি দরকার। আর লেদারের বা চামড়ার জিনিস কিনতে পকেটও হালকা হয় অনেকটাই। তাই যত্ন করা আবশ্য়িক। 

কিন্তু কীভাবে যত্ন করবেন! কীভাবে নতুনের মতো রাখতে পারবেন আপনার প্রিয় শখের লেদারের জিনিসকে, জানুন- 

১) লেদারের বা চামড়ার জিনিসের জেল্লা অনেক সময়ে কমে যায়। কিন্তু সেই জেল্লা ফেরাতে অনেকে তেল ও কন্ডিশনার ব্য়বহার করেন। এতে চট করে পুরনো জেল্লা ফিরে পাওয়া গেলেও আদপে রংয়ের ক্ষতি হয়। বাজারে লেদার কন্ডিশনার পাওয়া যায়। এই কন্ডিশনার দিয়ে পরিষ্কার করলে ব্য়াগ আগের মতোই চকচক করবে। 

২) চামড়ার জিনিসে জল বা চা জাতীয় জিনিস যেন না পড়ে দেখবেন। যদি পড়ে যায়,তা হলে দেরি না করে শুকিয়ে নিন। বৃষ্টির দিনে চামড়ার জুতো পরবেন না বা চামড়ার ব্য়াগ নেবেন না। 

৩) লেদারের ব্য়াগ পরিষ্কার করার জন্য় বাজারে সফট সোপ কিনতে পাওয়া যায়। জুতো ব্য়াগ এই ক্লিনার দিয়েই পরিষ্কার করুন। ক্লিনারটি দিয়ে পরিষ্কার করার পরে হালকা ভিজে তুলো দিয়ে তা মুছতে থাকুন। দেখবেন যাতে চামড়ার গায়ে কোনও ভাবে সাবান না লেগে থাকে। তবে খুব ঘন ঘন এই ক্লিনার ব্য়বহার করবেন না। 

৪) লেদারের জিনিস যখন ব্যবহার করবেন, দেখবেন যাতে নিজের হাতও পরিষ্কার থাকে। হাতে কোনও ময়লা বা তেল যেন না লেগে থাকে।

৫) লেদারের জিনিস কখনওই কোনও ধরনের স্পিরিটি বা অ্য়ালকোহল জাতীয় জিনিস দিয়ে পরিষ্কার করবেন না। 

৬) চামড়ার জিনিসে নোংরা বা দাগ লাগলে ফেলে রাখবেন না। চেষ্টা করুন সঙ্গে সঙ্গে বা সেই দিনই পরিষ্কার করার। 

৭) চামড়ার জিনিস কীভাবে রাখবেন, সেটাও গুরুত্বপূর্ণ। তাই অবশ্য়ই কোনও পরিষ্কার বাক্সয়ে রাখুন। দু-তিন সপ্তাহ অন্তর চামড়ার সেই জিনিস বের করে খোলা জায়গায় রাখুন। 

৮) ব্য়াগে বা জুতোয় ন্য়াপথলিন জাতীয় কিছু রাখবেন না। এতে চামড়ার ক্ষতি হয়। ন্য়াপথলিন গলে গিয়ে ব্য়াগে রাখলে রং নষ্ট হয়ে যায়। 

৯) চামড়ার ব্য়াগ যখন রাখবেন  ভাঁজ করবেন না। এতে ব্য়াগে স্থায়ী ভাবে দাগ বসে যায়। ব্যাগের ভিতরে খবরের কাগজ বা বাবল র‍্যাপ ভরে রাখুন। এতে ব্য়াগেরে শেপ নষ্ট হয় না।