করোনা ভাইরাস। নামটা শুনলেই প্রত্যেকেই যেন আতঙ্কিত। মুহূর্তের মধ্যে একজনের থেক আরেকজনের শরীরে ছড়িয়ে পড়ছে এই ভাইরাস।  মানুষের নিঃশ্বাস প্রশ্বাসের সঙ্গেই ছড়িয়ে যাচ্ছে এই রোগের জীবানু। কিন্তু এই করোনা ভাইরাস আসলে কী। আতঙ্কের আর এক নাম করোনা ভাইরাস। করোনা ভাইরাসের বাহক হল মানুষ। মানুষের সংস্পর্শেই সংক্রমিত হচ্ছে এই করোনা ভাইরাস । দীর্ঘ পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর যা নিশ্চিত করলেন চিনের চিকিৎসকরা।

আরও পড়ুন-বন্ধ হতে চলেছে এলআইসি-র একাধিক পলিসি, খোয়াতে পারেন লক্ষ লক্ষ টাকা...  

যা শুনেও উদ্বেগ বেড়েছে আরও কয়েকগুণ। শুধু চিনেই নয়, চিন ছাড়াও ভারত, মার্কিন মুলুকেও আতঙ্কের ছাপ স্পষ্ট। চিনের করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক এবার ভারতে। যার কারণেই কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক সতর্ক হয়ে গিয়েছে।  কলকাতা সহ  সমস্ত রাজ্য, বিমানবন্দরেও সতর্কতা জারি করেছে ডিজিসিএ। গতকালই সেই নির্দেশিকা সম্পর্কে স্বাস্থ্যভবন ওয়াকিবহাল করেছে। সমস্ত জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ও মেডিক্যাল  কলেজ স্তরের সব হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে  এই নিয়ে ওয়াকিবহাল করা হয়েছে।

আরও পড়ুন-হাঁচি পেলে আপনিও এমন করেন, এর ফলে হতে পারে মৃত্যুও...

এর পাশাপাশি সন্দেহভাজন কোনও রোগীকে ভর্তির দরকার পড়লে সেটার কোনও বন্দোবস্ত রয়েছে কিনা  তা নিয়েও খতিয়ে দেখেন জনস্বাস্থ্য আধিকারিকরা। রাজ্যের স্বাস্থ্য অধিকর্তা অজয় চক্রবর্তী জানান, আইডি হাসপাতালে আইসোলেশন ও অন্যান্য ব্যবস্থা যে ঠিকঠাকই রয়েছে তা নিশ্চিত হয়ে গেছে।  কেউ যদি এই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয় তাহলে তার নমুনা পাঠিয়ে দেওয়া হবে পুনের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ভাইরোলজিতে। কারণ নিঃশব্দেই শরীরে দানা বাঁধছে এই মারণ রোগ।  করোনা ভাইরাস যখন ধরা পড়বে তখন মৃত্যুর দোরগোড়ায় পৌঁছে যাবেন আপনি। ভয়াবহ এই মারণ রোগ আটকাতে ইতিমধ্যেই তৎপর সমস্ত দেশ।