গর্ভধারণের সময়টি বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। গর্ভধারণ করার আগে অনেক কিছু মাথায় রাখতে হবে। গৃহিনী হোক বা চাকরিজীবি গর্ভধারনের আগে চিকিৎসকেরাও বিশেষ কিছু পরামর্শ দিয়ে থাকেন। গর্ভধারণের অন্তত তিন মাস আগে থেকে পরিকল্পনা করে নিজেকে প্রস্তুত করে নেওয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ। কিন্তু এই পরিকল্পনার করার আগেও জেনে নিন কিছু জরুরি বিষয়।

আরও পড়ুন-প্রতিদিন খবরের কাগজে মোড়া খাবার খাচ্ছেন, ক্যান্সার থেকে হতে পারে মৃত্যু...


ফলিক অ্যাসিড সাপ্লিমেন্ট খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটি গর্ভের সন্তানের অস্বাভাবিকতা প্রতিরোধে সহায়তা করে। 

গর্ভধারণের আগে ভ্রমণ নিয়ে চিন্তা না করলেই চলে কিন্তু গর্ভবতী হয়ে যাওয়ার পর অনেক বেশি সর্তক থাকা প্রয়োজন। ট্রেনে বা গাড়িতে খুব বেশি ভ্রমণ না করাই ভাল।

গর্ভধারণের আগে যতটা পারবেন ওজন কমিয়ে নিন। তাই আগে থেকেই ডায়েটেশিয়ানের সঙ্গে কথা বলে নিন। কিন্তু গর্ভবতী হয়ে যাওয়ার পর কখনওই ওজন কমানোর চেষ্টা করবেন না। প্রতি সপ্তাহে ওজন পরীক্ষা করে নিন।

অনেকেই আছেন যারা ধূমপান ও মদ্যপান করে থাকেন তারা গর্ভধারণের আগে এই নেশা থেকে বিরত থাকুন।

 

 

গর্ভধারণের কথা ভাবলে সবার আগে ক্যাফেইন থেকে দূরে থাকুন। এমনকী গর্ভধারণের পরেও ক্যাফেইন না খাওয়াই ভাল।

গর্ভধারণের পর কী কী টিকা মায়ের জন্য জরুরী সেটা সবার আগে জরুরী। গর্ভধারণের পর নিয়ম মেনে সমস্ত নিয়ম মেনে প্রতিটি টিকা দিন।

গর্ভধারণের পূর্বেই  জেনে নিন আপনার জেনেটিক্স কি বলছে। গর্ভপাত অনেক সময় জেনেটিক্স কারণেও হয়ে থাকে। এই জন্য গর্ভধারণের  আগে ভাল কোনও গাইনোকলিজস্টের সঙ্গে পরামর্শ  নিয়ে নিন।