যারা কাকা ছিছি করেছে তারা ৫০০ টাকার বিনিময়ে করেছে, টাকা সময়ে না পৌঁছানোয় বন্ধ আন্দোলন। বিস্ফোরক অভিযোগ  সায়ন্তন বসুর। অন্যদিকে আগে বুদ্ধিজীবীদের কুকুর বলে আক্রমণ করেছিলেন বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। এক ধাপ এগিয়ে রাজ্য বিজেপির দাপুটে নেতা সায়ন্তন বসুর দাবি, যদি কুকুর শব্দে আপত্তি থাকে, তাহলে বাঁদর শব্দ লাগিয়ে নিন। সোমবার খড়গপুর শহরের নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের সমর্থনে বেশকিছু কর্মসূচিতে যোগ দিতে আসেন তিনি। কার্যক্রম প্রসঙ্গে তার দাবি,জনগণ যেখানে আছে সেখানে যাব কুকুর,বাঁদর যেখানে থাকে সেখানে যাব না।

এদিন সৌমিত্র খাঁ কে ছাপিয়ে আরও বিতর্কিত মন্তব্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসুর। সোমবার পশ্চিম মেদিনীপুর খড়্গপুরে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের সমর্থনে কর্মসূচিতে সামিল হতে এসে এ মন্তব্য করেন তিনি। যাতে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন শাসক দলের নেতারাও।
সোমবার খড়গপুর শহরে উপস্থিত হয়েছিলেন নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে প্রচার সভা করতে। এই সভা শেষ করে সাংবাদিকদের সামনে সৌমিত্র খাঁ -এর মন্তব্য প্রসঙ্গে নিজের মন্তব্য পোষণ করেন। এদিন সায়ন্তন বসু বলেন,সৌমিত্র খাঁ-এর কুকুর শব্দে আপত্তি থাকলে আপনারা বাঁদর বলতে পারেন। যারা কা কা করেছিল তারা ৫০০ টাকা পেয়েছিল কা কা করার জন্য। একটা করে কা বলেছে আর ৫০০ টাকা নিয়েছে। আজকাল আর কা কা ছি ছি চলছে না, কারণ টাকাটা সময়ে পৌঁছায়নি। যত দাড়িওয়ালা দেখতে পাচ্ছেন, সিবিআই খুঁজে বেড়িয়েছে, ইডি খুঁজে বেড়িয়েছে এতদিন যাদের। সেদিন কাকা ছি ছি করেছিল ৫০০ টাকার জন্য।তাই সৌমিত্র খাঁ এর কুকুর শব্দ যদি আপত্তি থাকে তাহলে আমার নাম করে ওদের নামে বাঁদর বসিয়ে দিন।

এ বিষয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন তৃণমূলের পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা সভাপতি অজিত মাইতি ৷ তিনি বলেন, বুদ্ধিজীবীদের সাথে মতপার্থক্য থাকতে পারে ৷ কিন্তু তাবলে সভ্যতার বাইরে আক্রমণ নক্কারজনক ৷ সায়ন্তন-দিলীপদের নিয়ে যতো কম বলা যায় ততোখানি ভালো ৷ এরা সভ্যতার কলঙ্ক, মাতৃগর্ভের লজ্জা ৷ এই ধরনের মানুষদের কথার পাল্টা জবাবও কোনও রুচিশীল মানুষ দেবে না ৷ ভুঁইফোড় এই নেতারা অন্ধকারের জীব ৷ উল্টোপাল্টা মন্তব্য করে সামনে আসতে চাইছে ।