কর্তারপুর করিডরের উদ্বোধনের যোগ দিয়ে সীমান্ত অতিক্রম করে পাকিস্তানে গিয়েছেন ভারতের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং। কর্তারপুর করিডরের উদ্বোধনের পাশাপাশি মনমোহন সিং ও পাক বিদেশমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি আলাদা করে সময়ও কাটান। এরপরেই  পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যমকে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে সেদেশের বিদেশমন্ত্রী কুরেশি জানান, অসাধারণ মনের মানুষ মনমোহন সিং।  তাঁর মানসিকতার পরিচয় আমি অনেক আগেই পেয়েছি।  এই প্রশংসার মাধ্যমে কি কুরেশি পরোক্ষে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে কটাক্ষ করতে চেয়েছেন, এই নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। 

কর্তারপুর করিডর উদ্বোধনে একেবারেই ব্রাত্য ছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কিন্তু সেই চা খাইয়ের নয়ের দশকে পাক প্রধানমন্ত্রীর মন জিতে নিয়েছিলেন মনমোহন। সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে কুরেশি স্মৃতিমেদুরতায় ডুব দেন। তিনি মন্তব্য করেন,  'একবার আমি প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের  বাড়ি গিয়েছিলাম। সেখানে আমকে খুব আন্তরিকতার সঙ্গে বসতে বলা হয়। বৈঠকখানায় তখনও পর্যন্ত মনমোহন সিং আসেননি। তাঁর স্ত্রী আমাকে  চা পানের কথা বলেন। এরপর মনমোহন সিং যখন বৈঠক খানায় এলেন, তাঁর হাতে আমার জন্য চায়ের কাপ ছিল।  মনমোহন সিংয়ের এই ধরনের ঘরোয়া ও আন্তরিক আপ্যায়নে আমি অভিভূত হয়ে গিয়েছিলাম।  আমি সেদিন বুঝতে পেরেছিলাম, কত বড় মনের মানুষ মনমোহন সিং।' 


শনিবার কর্তারপুর করিডরের উদ্বোধন হয়। পাকিস্তানে কর্তারপুর করিডরের উদ্বোধন করেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীা ইমরান খান।  পাকিস্তানে কর্তারপুর করিডরের উদ্বোধনে  যান  প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী  মনমোহন সিং।  সঙ্গে ছিলেন পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং, অভিনেতা তথা রাজনীতিবিদ সানি দেওল। পাকিস্তানের এক সংবাদমাধ্যমকে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে মনমোহন সিং বলেন, শিখ সম্প্রদায়ের জন্য আজকে একটা ঐতিহাসিক দিন। কর্তারপুর করিডরে খুলে দেওয়ার মাধ্যমে ভারত-পাকিস্তানের সম্পর্কের উন্নতি হবে বলে মনে করছেন মনমোহন সিং।  শনিবার পঞ্জাবের গুরুদাসপুরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ইন্টিগ্রেটেড চেকপোস্ট উদ্বোধন করেন।