দেশভাগের পর পাকিস্তানের সিয়ালকোটে শিবালা তেজা সিং মন্দিরে একটি মহাদেবের একটি মূর্তি প্রতিষ্ঠা করা হয়। তারপর বয়সের ভারে নয়, বরং বাহ্যিক আঘাতের ফলেই সেই মন্দির অনেকটাই ক্ষয়প্রাপ্ত হয়েছে। বিশেষত, বাবরি মসজিদ ধ্বংসের পর দেশজুড়ে বিভিন্ন হিন্দু মন্দিরে ব্যপক ভাঙচুর চালিয়েছিল দুষ্কৃতীরা। দেশভাগের ৭২ বছর পর  প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের শাসনে আবার পুনরায়া সারানো হচ্ছে প্রায় ১০০০ বছরের পুরনো শিব মন্দির।

সবথেকে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, পাক সরকার কেবল মন্দিরটির সংস্কারই করছে না বরং, হিন্দুদের জন্য এই মন্দিরটি খুলে দেওয়ারও বন্দোবস্ত করল। প্রসঙ্গত, লাহোর-ভিত্তিক স্যার গঙ্গা রাম হেরিটেজ ফাউন্ডেশন-এর সহযোগীতায় মন্দিরটি সংস্কার করা হয়েছে। 

একটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে জানা গিয়েছে, স্থানীয় হিন্দুদের উপস্থিতিতে একটি যজ্ঞের আয়োজন করে, মন্ত্র পাঠের মাধ্যমে মন্দিরের দ্বার খোলা হয়েছে। যদিও জানা গিয়েছে যে, মন্দিরে কোনও বিশেষ সংস্কারের প্রয়োজন পড়েনি। কারণ শিবালা বিল্ডিং-টি যে খুব নড়বড়ে এমনটা নয়, কেবলমাত্র কয়েকটি ছোট ছোট বিষয় সারিয়ে তোলার কাজ বাকি। মূলত দুই ধর্মের মধ্যে সম্প্রীতি বজায় রাখতেই হিন্দু মন্দিরগুলিকে পুনরুদ্ধার করার পথে পাক সরকার।