স্বপ্না বর্মণ-এর পর আরও এক বঙ্গকন্য়ার হাত ধরে ইতিহাস গড়ল ভারত। এবার কমনওয়েলথ গেমস টেবিল টেনিস চ্যাম্পিয়নশিপ-এ সোনা জিতল ভারত। দেশের কোনও টেবিল টেনিস প্লোয়ার এর আগে কখনও এই সোনা জেতেননি।  বাংলার ঐহিকা মুখোপাধ্যায় এবার সেই সোনা জিতে এক বিরল কৃতিত্বের অধিকারী যেমন হলেন তেমনি, দেশকেও এক ইতিহাসে স্থান করে দিলেন।

কটকে জওহরলাল নেহেরু ইনডোর স্টেডিয়ামে আয়োজিত কমনওয়েলথ টেবিল টেনিস-এ প্রথম ভারতীয় মহিলা হিসাবে সোনা জয়ের পথে ভারতের-ই মাধুরিকা পাটকার-কে ৪-০ তে হারিয়ে প্রথম স্থানে নিজের জায়গা পাকা করেন তিনি। কমনওয়েলথস গেমস-এ টেবিল টেনিস-এর প্রায় সব কটা সোনাই  এসেছে ভারতের ঝুলিতে। সব মিলিয়ে মোট সাতটি সোনা জিতেছে ভারত। কমনওয়েলস-এর দলগত বিভাগেই শুরু হয়েছিল ভারতে জন্য সোনা জেতা। তা অব্যাহত থাকল ব্যক্তিগত বিভাগেও। সোমবারের চারটি বিভাগে ফাইনালেই উভয় দিকে একে অপরের প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন ভারতীয়রা। একসময় তো এটাও মনে হয়েছিল যে এটা আন্তর্জাতিক নয়, কোনো জাতীয় টুরনামেন্ট। কমনওইয়েলথস গেমস- এর শুরু থেকেই সোনা জেতায় ভারতের পাল্লা ভারী। ঘরের মাঠে খেলার হয়ত এটাই সুবিধা। 

সোমবার ফাইনালে, আকর্ষণের মূল কেন্দ্রবিন্দু ছিল দুটি সিঙ্গেলস। কারন দলগত বিভাগের ফাইনালে অসুস্থ থাকা সত্ত্বেও খেলেছিলেন ভারতের মনিকা বাত্রা। এবং শুধু তাই নয়, ফাইনালে সিঙ্গাপুর কে হারিয়ে সোনা জিতেছেন তিনি। তবে তার পর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন সিঙ্গেলস খেলবেন না। তাই তার অভাবে ভারতীয় মেয়েদের অবস্থা কেমন হয় সেটাই দেখার অপেক্ষায় ছিল সবাই। তবে সেখানে মনিকা-র অভাব বুঝতেই দিলেন না ঐহিকা। অত্যন্ত বুদ্ধিমত্তার সাথে খেলেছেন। ফাইনালে ভারতের মাধুরিকা পাটকার-কে ৪-০ টে হারিয়ে প্রথম স্থানে সোনা জেতেন তিনি। সঙ্গে  প্রথম ভারতীয় মহিলা হিসাবে সোনা বিজেতার খেতাব জিতে নেন বাংলার মেয়ে ঐহিকা। সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডের হো টিন টিন কে হারিয়েছিলেন তিনি। তবে আন্তর্জাতিক টুরনামেন্টে এটিই তার প্রথম সোনা।