খেতাব রক্ষার করার লড়াই ছিল তাঁর সামনে। তৃতীয় রাউন্ড পর্যন্ত চোট নিয়েও দাপটের সঙ্গে এগিয়েছিলেন, কিন্ত চতুর্থ রাউন্ডের ম্যাচে এসে সবটাই থমকে গেল। ওয়ারিঙ্কার বিরুদ্ধে ম্যাচের শুরু থেকেই ছন্দ খুঁজে পাচ্ছিলেন না বিশ্বের এক নম্বর টেনিস তারকা। প্রথম দুটি সেটেই তিনি পিছিয়ে পরেন। ফলে ৬-৪ এ হারলেন প্রথম সেট। দ্বিতীয় সেটে কিছুটা লড়াই করলেও, টাইব্রেকারে গিয়েও শেষ রক্ষা করতে পারেলন না যুক্তরাষ্ট্র ওপেনের শীর্ষ বাছাই খেলোয়াড়। হারলেন ৭-৫এ। দ্বিতীয় সেটের হারের পরেই তিনি কোর্টে ডেকে নেন চিকিৎসকদের। প্রাথমিক কিছু চিকিৎসার পর তৃতীয় সেটের খেলা শুরু করেন নোভাক, কিন্তু পারলেন না।

গ্যালারীতে থাকা দর্শক হোন বা টিভির পর্দায় চোখ রাখা জোকার ভক্ত,  হতাশ সবাই। তৃতীয় সেটের খেলাতেও পিছিয়ে পরেন নোভাক। তৃতীয় সেট যখন ২-১এ, তখনই জোকার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেন, আর না, চোট নিয়ে এভাবে আর লড়াই করা সম্ভব নয়। ইউএস ওপেন থেকে নাম তুলে নেওয়ার সিদ্ধান্ত বিশ্বের এক নম্বর তারকার। যুক্তরাষ্ট্র ওপেনের কোয়ার্টার ফাইনালের পৌঁছে গেলেন ওয়ারিঙ্কা। 

শেষ পাঁচটি গ্র্যান্ডস্ল্যামের মধ্যে চারটিই জিতেছিলেন নোভাক জোকোভিচ। গতবারের ইউএস ওপেনের খেতাবও ছিল তাঁর পকেটে। এবারও মার্কিন মুলুকে নেমেছিলেন শীর্ষ বাছাই হয়েই। তবে দ্বিতীয় রাউন্ডের খেলার সময় থেকেই কাঁধের চোট সমস্যা তৈরি করতে শুরু করে জোকার সামনে। চতুর্থ রাউন্ড পর্যন্ত তিনি যে খেলতে পারবেন সেটাও অনেকেরই ধারণার বাইরে ছিল। কিন্তু চ্যাম্পিয়নরা যে সহজে হাল ছাড়েন না। চোটের জন্য টুর্নামেন্ট থেকে নাম প্রত্যাহর করে সংবাদ মাধ্যমের সামনে নোভাকের ছোট্ট প্রতিক্রিয়া, "অতীতেও যা বলেছে এখনও তাই বলব, আমার চোট নিয়ে আমি কথা বলতে চাই না।"  নোভাক যুক্তরাষ্ট্র ওপেন থেকে সরে যাওয়ায় রজার ফেডেরার ও রাফায়েল নাদালের কাজটা অনেক সহজ হয়ে গেল বলেই মনে করছে টেনিস মহল।