করোনার চিকিৎসার জন্য দেশের ১০০ জনের বেশি স্বাস্থ্য পরিষেবা বিশেষজ্ঞ একসঙ্গে মিলে চালু করেছেন ডিজিটাল হেলথকেয়ার 'স্বাস্থ্য'। এই ব্যবস্থা ডিজিটাল প্রযুক্তির মাধ্যমে ভারতীয়দের যুক্ত করবে সেরা চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য পরিষেবাদাতাদের সঙ্গে। সাম্প্রতিক সঙ্কটের সময়ে টেলিমেডিসিনকে জাতীয় গুরুত্বের জায়গায় তুলে আনতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সেই আর্জিতে দ্রুত সাড়া দিয়ে দেশের স্বাস্থ্য ও প্রযুক্তিক্ষেত্রের শীর্ষস্থানীয়রা এনেছেন ডিজিটাল প্রযুক্তি মঞ্চ স্বাস্থ্যকে। মোবাইল অ্যাপভিত্তিক এই পরিষেবা ভারতের প্রযুক্তিভিত্তিক ক্ষমতার প্রকাশ। এই মঞ্চ দেশের ১৩০ কোটি মানুষের কাছে পৌঁছে দেবে সাধ্যের মধ্যে চিকিৎসা পরিষেবা পাওয়ার সমান সুযোগ। দেশের যে কোনও অঞ্চলের বাসিন্দারা এবং যে কোনও নাগরিক এই পরিষেবার সুযোগ  নিতে পারবেন।

দেশীয় এই ডিজিটাল হেলথকেয়ার ব্যবস্থা এমন একটা সময়ে চালু করা হচ্ছে যখন কোভিড ১৯ অতিমারী পুরনো পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থাগুলিকে একটা কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলে দিয়েছে। নানা ধরনের ভিডিও ও টেলিফোন ব্যবস্থার মাধ্যমে রোগীরা যাতে রেজিস্টার্ড চিকিৎসকদের সঙ্গে কথাবার্তা বলে স্বচ্ছন্দে এবং প্রত্যন্ত এলাকা থেকেও পরিষেবা পেতে পারেন, তার ব্যবস্থা করবে স্বাস্থ্য। কোনও ধরনের চিকিৎসা দরকার তা ঠিক করতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবস্থা কাজে লাগানো হবে। এতে পাওয়া যাবে ডিজিটাল পদ্ধতিতে সই করা প্রেসক্রিপশন। চিকিৎসা সংক্রান্ত পরামর্শও পাওয়া যাবে ডিজিটাল পদ্ধতিতে। এই উদ্যোগের বিষয়ে যথেষ্ট আশাবাদী স্বাস্থ্য গভর্নিং কাউন্সিলের ক্রিস গোপালাকৃষ্ণান। তাঁর বিশ্বাস দেশের বেশিরভাগ মানুষই এই ডিজিটাল স্বাস্থ্য পরিষেবার মাধ্যামে উপকৃত হবে।

বিনামূল্যে পরামর্শ ছাড়া স্বাস্থ্য দেবে হোম কোয়ারেন্টিনে সহযোগিতা, ডায়াগনিস্টিক ও ফার্মেসি সংক্রান্ত সহযোগিতা, হাসপাতালের বেড খুঁজে দেওয়া এবং ভর্তুকির দামে তা বুকিং করার জন্য সহযোগিতা। স্বাস্থ্যমঞ্চের সব চিকিৎসকের প্রয়োজনীয় তথ্য পরীক্ষা করা হয়েছে। টেলিফোনে পরামর্শ দেওয়ার জন্য তাঁদের বিশেষভাবে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে এবং কোভিড ১৯এর চিকিৎসা সংক্রান্ত প্রোটোকলও তাঁদের শেখানো হয়েছে। হেলথকেয়ার মঞ্চ চালানোর জন্য এই শিল্পের ক্ষেত্রে সাইবার নিরাপত্তার যে সব নিয়মকানুন রয়েছে তা পুরোপুরি মেনে চলবে এই মঞ্চ। রোগী ও অন্যান্যদের তথ্য যাতে নিরাপদে পাঠানো হয়, যেগুলি জমা করে রাখা, তার ওপর নজরদারি করা ও দরকারে সেই তথ্য যাতে পাওয়া যায়— এসব কিছু নিশ্চিত করতে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেবে স্বাস্থ্য। এখন এই অ্যাপে পরামর্শ করা যাবে হিন্দি, বাংলা ও গুজরাটি ভাষায়। পরে পরিষেবা পাওয়া যাবে ২৫টি ভারতীয় ভাষায়।