প্লাস্টিক বর্তমান যুগে পরিবেশ দূষণের এক অন্যতম কারণ। এই বস্তুটির ফলে বন্যপ্রাণ, বন্যপ্রাণ আবাসস্থল, এমনকি মানবজাতীর ওপর বিরূপ প্রভাব সৃষ্টি করেছে৷ মানুষের অসচেতনতাই প্লাস্টিক দূষণের প্রধান কারণ ৷ প্লাস্টিক এমন এক রাসায়নিক পদার্থ যা পরিবেশে পচতে অথবা কারখানায় পুনঃপ্রক্রিয়াকরণ করতে প্রচুর সময় লাগে ৷ তাই একে "অপচ্য পদার্থ" হিসেবে আখ্যা দেওয়া হয়। এই দূষণের হাত থেকে পরিবেশকে রক্ষা করতে সম্প্রতি ছত্তিশগড়ের রায়পুরের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজির ৩ জন শিক্ষার্থী এমন এক প্লাস্টিক আবিষ্কার করেছেন যা ১০০ শতাংশ বায়োডিগ্রেডেবল। 

আরও পড়ুন- সাধ্যের মধ্যে বিক্রি শুরু হল সুজুকি-র নতুন এই স্কুটি, রইল বিস্তারিত

এটা আমাদের সকলেরই প্রায় জানা যে, একক-ব্যবহারের প্লাস্টিক নষ্ট হতে সাধারণত ১০০ বছরের মত সময় লাগে। একই সময়ে, এটি কেবল এক বছরে নষ্ট হয়ে যাবে। এমনকি এই আবিষ্কৃত প্লাস্টিক পুনর্ব্যবহারও করা যেতে পারে। এই ক্ষেত্রে, এই একক ব্যবহারটি প্লাস্টিকের বিকল্প হিসাবে প্রমাণিত হতে পারে বলে আশাবাদী ছাত্ররা। এমন অভাবনীয় আবিষ্কারের জন্য ওই তিন শিক্ষার্থী এনআইটিতে অনুষ্ঠিত 'পুকার গো গ্রিন ফেস্ট'-এ প্রথম পুরষ্কারও পেয়েছে।

আরও পড়ুন- দেশীয় প্রযুক্তিতে মোবাইল তৈরি থেকে বৈদ্যুতিন সরঞ্জাম তৈরি, বাজেটে একগুচ্ছ ঘোষণা

নিখিল ভার্মা, কৃষ্ণেন্দু এবং নীহাল পান্ডে ভুট্টার স্টার্চ, গ্লিসারিন এবং বেলেগার মিশিয়ে এই প্লাস্টিক তৈরি করেছেন। শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন, যে এটি তৈরি করতে তাদের তিন মাস সময় লেগেছে। এরপরে এটি ল্যাবটিতে পরীক্ষা করা হয়েছিল, যেখানে এই পরীক্ষাটি সফল হয়েছিল। শিক্ষার্থী নিখিল ভার্মা বলেছেন যে আমরা এটি প্রতিযোগিতার জন্য প্রস্তুত করেছিলাম, তবে এখন আমরা এটিকে পরিবেশ রক্ষার্থে প্রস্তুত করবো। অর্থাৎ আপনি এটি ফেলে দিলেও এটি পরিবেশ বা প্রাণীর কোনও ক্ষতি করবে না। তাদের দাবি যে এটির দাম বিদ্যমান প্লাস্টিকের তুলনায় অনেক কম। আর পাশাপাশি প্লাস্টিকের দূষণের হাত থেকে পরিবেশ-কে রক্ষা করতেও সাহায্য করবে।