আমেরিকার লাস ভেগাসের এক শহরতলী থেকে মার্কিন মহিলাকে অপহরণ করার অভিযোগ উঠল এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। ঘটনার সঙ্গে অভিযুক্তের মেয়েও জড়িত রয়েছে বলে জানা গিয়েছে। ওই মহিলা অভিযুক্ত ব্যক্তির বিরুদ্ধে লুঠপাঠ, অপহরণ, ধর্ষণ ও হত্যার চেষ্টার অভিযোগ নিয়ে এসেছেন বলে জানা গিয়েছে। তিনি দাবি করেছেন, ব্যক্তিকে তাঁর মেয়ে সাহায্য করেছেন। মহিলার বক্তব্য থেকে নিযার্তনের নিদারুণ কাহিনী উঠে এসেছে বলে। 

অযোধ্যা রায়েও নাক গলাল পাকিস্তান, কড়া জবাবে উড়িয়ে দিল বিদেশ মন্ত্রক

নির্যাতিতা মহিলা জানিয়েছেন, বন্দুকের নলের সামনে রেখে তাঁকে অপহরণ করা হয়। সেই সময় তাঁর কাছে যা ছিল তা নিয়ে ক্যালিফোর্নিয়ার নিয়ে যায় অপহরণকারীরা। সেখানেই এক সপ্তাহ তাঁকে বন্দি করে রাখা হয়। সাত দিন বন্দি অবস্থায় ছিলেন তিনি।  বন্দি অবস্থাতেই তাঁকে ক্রমাগত ধর্ষণ করে অভিযুক্ত ব্যক্তি। এরপর মরার জন্য তাঁকে মরুভূমিতে ফেলে রেখে যায় বাবা ও মেয়ে। কতদিন তিনি মরুভূমিতে ছিলেন জানেন না। 

মরুভূমির প্রচণ্ড ঠান্ডায় তিনি মাঝে মাঝেই জ্ঞান হারিয়েছেন।  ওই মরুভূমিতে মার্কিন বায়ুসেনা একটা ঘাঁটি রয়েছে। তাঁরা  বছর চল্লিশের এই মহিলাকে দেখতে পেয়ে উদ্ধার করেন। স্থানীয় হাসপাতালে মহিলাটিকে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসকরা জানান, বরাত জোরে ওই মহিলা বেঁচে গিয়েছেন। বুধবার সকালে মার্কিন বায়ুসেনা ক্যালিফোর্নিয়ার মরুভূমি থেকে ওই মহিলাকে উদ্ধার করেছেন। 


অযোধ্যা রায়ের সঙ্গেই সোশ্যাল মিডিয়ায় নয়া রেকর্ড নেটিজেনদের, কী সেই রেকর্ড

ক্যালিফোর্নিয়া পুলিশ অভিযুক্ত স্ট্যানলি আলফ্রেড লটন ও তাঁর মেয়ে নিকোলে পোচে লটনকে গ্রপ্তার করেছে। তবে কেন ওই মহিলাকে অভিযুক্তরা এই নির্যাতন করেছে, সেই বিষয়ে পুলিশ  কিছু বলতে পারেনি। ক্যালিফোর্নিয়া পুলিশ ঘটনাকে মর্মান্তিক বলে আখ্যা দিয়েছে। লাস ভেগাসের পুলিশ সমস্ত তথ্য সংগ্রহ করছে। তবে এখনও পর্যন্ত এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে লাস ভেগাসের পুলিশ অস্বীকার করেছে বলে জানা গিয়েছে।